কুড়িগ্রামে স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীর যাবজ্জীবন কারাদন্ড

দ্বিতীয় বিয়ে করার অনুমতির জন্য সাদা কাগজে সাক্ষর না করায় স্ত্রীকে হত্যার দায়ে স্বামী বাবলু মিয়াকে (৪৫)   যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।মঙ্গলবার (২৮ জানুয়ারি) দুপুরে কুড়িগ্রাম জেলা ও দায়রা জজ মুন্সি রাফিউল আলম এ আদেশ দেন। আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট আব্রাহাম লিংকন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

কারাদণ্ডপ্রাপ্ত বাবলু মিয়া জেলার সদর উপজেলার ভোগডাঙা ইউনিয়নের কাচিচর গ্রামের ছমির জালালের ছেলে। সে বর্তমানে জেল হাজতে রয়েছে।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, দ্বিতীয় বিয়ে করার অনুমতি না দেওয়ায় ২০০৮ সালে বাবলু মিয়া তার স্ত্রী আনোয়ারা বেগমকে হত্যা করে রশিতে ঝুলিয়ে রাখে এবং এ হত্যাকাণ্ডকে আত্মহত্যা হিসেবে চালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে। পরবর্তীতে আনোয়ারার বড় ভাই ইউনুছ আলী বাদী হয়ে কুড়িগ্রাম সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। ময়নাতদন্ত, পুলিশি তদন্ত ও আদালতের সাক্ষ্য প্রমাণে আনোয়ারার মৃত্যু পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড হিসেবে প্রমাণ হওয়ায়, দীর্ঘ এক যুগ শুনানি শেষে আদালত আসামি বাবলু মিয়াকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দেন।

সরকার পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট আব্রাহাম লিংকন জানান, প্রাথমিকভাবে ছয় জনকে আসামি করে নিহত গৃহবধূর বড় ভাই মামলা করলেও চার্জশিটে শুধু আসামি বাবলু মিয়ার সম্পৃক্ততা পাওয়া যায়। দীর্ঘ শুনানি শেষে আদালত আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন। এই রায় ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠায় আরও একটি দৃষ্টান্ত বলে জানান এই আইনজীবী।

 

আসলাম উদ্দিন আহমেদ, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি