ভয়াবহ দাবানলের পর এবার অস্ট্রেলিয়ায় বন্যার শঙ্কা

প্রায় চার মাস ধরে চলা ভয়াবহ দাবানলের পর ভারী বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে অস্ট্রেলিয়ায়। স্বস্তির বৃষ্টিতে দাবানলের উত্তাপ কিছুটা কমলেও এবার দেখা দিয়েছে নতুন বিপদ। শনিবার দেশটির পূর্ব উপকূলীয় এলাকায় প্রবল বর্ষণের ফলে বন্যার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে বলে স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের বরাতে জানা গেছে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানায়, অস্ট্রেলিয়ার ভিক্টোরিয়া, নিউ সাউথ ওয়েলস (এনএসইউ) ও কুইন্সল্যান্ডে প্রবল বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। এ তিনটি রাজ্য কিছুদিন আগে ভয়াবহ দাবানলে পুড়ছিল। বাজে আবহাওয়ার কারণে কুইন্সল্যান্ডের প্রধান সড়কগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। নিউ সাউথ ওয়েলসের কিছু অংশও এখন বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন।

এই বৃষ্টিপাত দাবানল নিয়ন্ত্রণে আনতে বেশ সাহায্য করছে বলে জানিয়েছেন দেশটির দমকলকর্মীরা। তবে নিউ সাউথ ওয়েলসে প্রবল বর্ষণ ও ঝড়ের ফলে বেশ কিছু এলাকায় বন্যা সতর্কতাও জারি করা হয়েছে।

দমকলকর্মীরা জানিয়েছেন, দাবানল নিয়ন্ত্রণে তারা বৃষ্টির কারণে সৃষ্ট ‘অনুকূল পরিস্থিতি’ ও শীতল আবহাওয়ার সুবিধা পাচ্ছেন। তবে ৭৫টি জায়গায় এখনো আগুন জ্বলছে। কিছুদিন আগেও এই সংখ্যা একশ’র বেশি ছিল।

স্থানীয় দমকল বিভাগ এক টুইট বার্তায় জানিয়েছে, আগুনে জ্বলতে থাকা বেশ কিছু এলাকায় বৃষ্টি পড়ছে, তবে দূরবর্তী দক্ষিণ উপকূল এবং ওই এলাকার সীমান্তে এখনো আর্দ্রতা পৌঁছায়নি।

গত কয়েকমাসে অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে সবচেয়ে ভারী বৃষ্টিপাত হয়েছে কুইন্সল্যান্ডে। বেশ কিছু প্রধান সড়ক ও আবাসিক এলাকা পানিতে তলিয়ে গেছে। তবে এতে এখনো কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। রাজ্যের আবহাওয়া ব্যুরো জানিয়েছে, সেখানে ভারী বৃষ্টিপাত কমে গেছে। তবে সপ্তাহজুড়ে হালকা বৃষ্টি ও বজ্রঝড়ের সম্ভবনা রয়েছে।

ভিক্টোরিয়ার আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, শনিবার দিনভর রাজ্যের কেন্দ্রীয় ও পূর্বাঞ্চলে বজ্রঝড়ের সম্ভাবনা রয়েছে। ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে রাজ্যের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে ঝড় আরও তীব্রভাবে আঘাত হানতে পারে।

উত্তর-পূর্ব দিকে বৃষ্টিপাতে বন্যার সম্ভাবনা দেখা দিলেও অস্ট্রেলিয়ার দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে এখনো তাণ্ডব চালাচ্ছে দাবানলের আগুন। ক্যাঙারু আইল্যান্ডে এখনো এক ছিটেফোঁটাও বৃষ্টি নামেনি।

সেপ্টেম্বর থেকে দাবানলে জ্বলছে অস্ট্রেলিয়া। ভয়ঙ্কর এই দাবানলে এখন পর্যন্ত অন্তত ২৮ জন প্রাণ হারিয়েছেন, মারা গেছে ৫০ কোটিরও বেশি প্রাণী। দাবানলের লেলিহান শিখায় ধ্বংস হয়েছে হাজার হাজার ঘরবাড়ি, পুড়ে ছাই হয়েছে লাখ লাখ একর জমির গাছপালা।