ফরিদপুরে বেওয়ারিশ কুকুরের উৎপাত, ভোগান্তিতে সাধারণ মানুষ!

ফরিদপুর পৌরশহরে স্বল্প সময়ের ব্যবধানে বেওয়ারিশ পাগলা কুকুর ১৮ জন পথচারীকে কাঁমড়িয়েছে। সোমবার সকাল পৌনে ১০টা থেকে সোয়া ১০টার মধ্যে ফরিদপুর স্টেশন সড়ক থেকে জেলা প্রশাসকের বাসভবন সড়ক এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। আহতরা বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন।

স্থানীয়রা জনায়, এরকম ঘটনা প্রতিনিয়তই ঘটছে। এছাড়া ফরিদপুর পৌরশহরের আঁনাচে-কাঁনাচে বেওয়ারিশ কুকুরের সংখ্যাও দিনদিন বেড়েই চলছে। তবুও পৌরকর্তৃপক্ষের কোনো দৃশ্যমান পদক্ষেপ নেই। এতে ভোগান্তি পোহাচ্ছে সাধারণ মানুষ।

ফরিদপুর জেনারেল হাসপাতালের জলাতঙ্ক নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্রের সিনিয়র স্টাফ নার্স মো. আনসার আলী সাংবাদিকদের জানান, কুকুরের কামড়ে আহত হয়ে ১৮ জন রোগী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসেন। তারা হলেন, এমএ রাজ্জাক, ঝিলু, হযরত, রাতুল, দেলোয়ার, মিরা, পল্লব বিশ্বাস, ফয়সাল, সাইদুর, নয়ন, শেখ সবুজ, সাকিব, ইদ্রিস আলী, সজিব, সুমন, হিরু শেখ, রবিউল মৃধা ও জাহাঙ্গীর।

আহত এমএ রাজ্জাক জানান, সকালে হেঁটে তিনি স্টেশন রোডে দাঁড়িয়ে থাকার সময় কালো রঙের একটি কুকুর তার পায়ে কামড় দেয়। কুকুরটিকে কামড় থেকে ছাড়াতে গেলেও কয়েক মিনিট লেগে যায়।

ফরিদপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্র রবিউল মৃধা জানান, স্কুল গেটে প্রবেশের সময় কুকুরে কামড়ায়। পরে এলাকাবাসী ওই কুকুরটিকে পিটিয়ে মেরে ফেলে।

এদিকে, হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা এসব রোগীদের প্রাথমিক ইনজেকশন হিসেবে রেবিক্স ভিসি বিনামূল্যে দেয়া হলেও গুরুতর আক্রান্তদের জন্য রেবিক্স আইজির সাপ্লাই নেই। প্রায় তিন হাজার টাকা মূল্যের এই রেবিক্স আইজি ইনজেকশন বাইরে থেকে কিনে নেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। আক্রান্ত ১৮ জনের অধিকাংশই গুরুত্বর জখম।

হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি