প্রলয়ঙ্কারি ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের আঘাতে ৫ জনের প্রাণহানি

প্রলয়ঙ্কারি ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের আঘাতে খুলনা, দাকোপ, মাদারীপুর, বাগেরহাট ও পটুয়াখালীতে পাঁচ জনের প্রাণহানি খবর পাওয়া গেছে। নিহত পাঁচ জনই গাছ চাপা পড়ে মারা গেছেন বলে জানা গিয়েছে। এছাড়া, বরগুনায় আশ্রয়কেন্দ্রে আরেকজনের স্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে। রবিবার (১০ নভেম্বর) বিকেল ৪টায় স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম থেকে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

কন্ট্রোল রুমের সহকারী পরিচালক ডা. আয়শা আক্তার বলেন, ‘পটুয়াখালীতে ৬৫ বছর বয়সী হামিদ ফকির, খুলনার দীঘলিয়ায় ৪০ বছরের আলমগীর, দাকোপে ৫২ বছরের প্রমিলা মণ্ডল, বাগেরহাটে ১৫ বছরের সামিয়া ও মাদারীপুরে ৬০ বছরের সালেহা বেগম গাছচাপায় মারা গেছেন। এছাড়া, বরগুনায় আশ্রয়কেন্দ্রে ৭০ বছর বয়সী হালিমা খাতুনের স্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে।’

বুলবুলের আঘাতে বরিশাল ও খুলনায় ১৫ জন আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে ভোলার লালমোহনে পাঁচ জন, চরফ্যাশনে তিন জন, বরগুনা সদরে তিন জন, পটুয়াখালীর দশমিনায় দুই জন, খুলনার কয়রাতে এক জন ও সাতক্ষীরা সদরে একজন। এরমধ্যে হাসপাতালে ভর্তি আছেন নয় জন, বাকি ছয় জনকে চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

আয়শা আক্তার বলেন, ‘বুলবুল-দুর্গত এলাকা ভোলা, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী ও চাঁদপুর—মোট ১৪ জেলার ১০৮টি উপজেলায় ৩ হাজার ৯৭৮টি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে। সেখানে এক হাজার ৪৮৪টি মেডিক্যাল টিম কাজ করছে।’

ডা. আয়শা আক্তার আরও বলেন, ‘গতকালই (৯ নভেম্বর) ঘূর্ণিঝড় কবলিত এলাকার স্বাস্থ্য বিভাগের সবার ছুটি বাতিল করা হয়েছে। এছাড়া দুর্যোগ মোকাবিলায় আটটি নির্দেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।’ স্থানীয় প্রশাসন এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে সমন্বয় করে তাদের কাজ করতে বলা হয়েছে বলেও তিনি জানান।