সাগরে গভীর নিম্নচাপ, শক্তি সঞ্চয় করে রূপ নিতে পারে ঘূর্ণিঝড়ে

পূর্ব ও মধ্য বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপটি আরও শক্তিশালী হয়ে পরিণত হয়েছে গভীর নিম্নচাপে। এ কারণে চার সমুদ্র বন্দরে এক নম্বর দূরবর্তী সতর্ক সংকেত জারি করা হয়েছে। এর প্রভাবে দেশের উপকূলীয় এলাকায় বৃষ্টি হতে পারে। নিম্নচাপটি আজ রাতে আরও শক্তিশালী হয়ে ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে আবহাওয়া অধিদফতর।

আবহাওয়াবিদ এটিএম বজলুর রশীদ বলেন, নিম্নচাপটি এরইমধ্যে গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। এটি যদি আজ রাতে আরও শক্তি সঞ্চয় করে তাহলে সেটি ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে। ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিলে ঝড়টির নাম হবে ‘বুলবুল’। তিনি বলেন, এটি একটি আশঙ্কা। এখনই নিশ্চিত করে বলা সম্ভব নয় নিম্নচাপটি ঝড়ে পরিণত হবে নাকি দুর্বল হয়ে পড়বে। নিম্নচাপটির শক্তি সঞ্চয় এর গতির ওপর নির্ভর করছে,  নিশ্চিত করে কিছু আগে থেকে বলা সম্ভব নয়।

বাংলাদেশের উপকূলে ঝড়টি আঘাত হানতে পারে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, এখনই বলা যাচ্ছে না ঝড়টি বাংলাদেশের উপকূলে আঘাত হানবে কিনা। কারণ, বাতাসের গতির ওপর নির্ভর করছে ঝড়টি কোনদিকে যাবে। বাতাসের গতি ঘুরে গেলে সেটি ভারতের উপকূলেও আঘাত হানতে পারে বলে তিনি জানান।

আবহাওয়া অধিদফতর জানায়, পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগর ও এর আশেপাশের এলাকায় অবস্থানরত নিম্নচাপটি সামান্য পশ্চিম-উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর  ও ঘনীভূত হয়ে আজ বুধবার সকাল ৯টায় একই এলাকায় গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। এটি আরও ঘনীভূত হয়ে উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে। লঘুচাপের বর্ধিতাংশ উত্তর বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত।

পূর্বাভাসে বলা হয়, গভীর নিম্নচাপের প্রভাবে দেশের উপকূলীয় অঞ্চলের দু-এক জায়গায় হালকা বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়া দেশের অন্য এলাকা অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারাদেশের আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে।

এক সর্তকবার্তায় আবহাওয়াবিদ মো. বজলুর রশিদ জানান, গভীর নিম্নচাপটি আজ দুপুর ১২টায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ৫ কিলোমিটার দক্ষিণ থেকে দক্ষিণ পশ্চিমে, কক্সবাজার থেকে ৯৩০ কিলোমিটার দক্ষিণ থেকে দক্ষিণ পশ্চিমে, মংলা সমুদ্র বন্দর থেকে ৯৯৫ কিলোমিটার দক্ষিণে এবং পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে ৯৫০ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থান করছিল।

গভীর নিম্নচাপ কেন্দ্রের ৪৮ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৫০ কিলোমিটার, যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ৬০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। গভীর নিম্নচাপ কেন্দ্রের কাছে সাগর খুবই উত্তাল রয়েছে। এ কারণে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরগুলোকে ১ নম্বর দূরবর্তী সতর্ক সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। পাশাপাশি উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত সকল মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি এসে সাবধানে চলাচল করতে এবং গভীর সাগরে বিচরণ না করার জন্য বলা হয়েছে।