আইসিসি কর্তৃক দুই বছরের জন্য নিষিদ্ধ সাকিব

ম্যাচ ফিক্সিং-এর প্রস্তাব পেয়েও তা আইসিসিকে না জানানোয় আইসিসি কর্তৃক দুই বছরের শাস্তি পেয়েছেন বাংলাদেশের টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এমনটাই জানিয়েছে আইসিসি। এতে বলা হয়েছে দুই বছরের জন্য নিষিদ্ধ করা হলেও সাকিব নিজের দোষ স্বীকার করায় তার শাস্তির মেয়াদ হবে এক বছর।

আইসিসি জানিয়েছেন, সাকিব নিজে তার দোষ স্বীকার করেছেন। দুর্নীতি দমন কমিশনের (আকসু) শুনানিতে নিজের নিষেধাজ্ঞার ওপর একমত হয়েছেন তিনি। তার বক্তব্যে সন্তুষ্ট হয়ে তার সাজা এক বছর কমানো হয়েছে। আগামী বছরের ২৯ অক্টোবরের পর থেকে তিনি সব ধরনের ক্রিকেট খেলতে পারবেন।

আইসিসিকে সাকিব বলেন, ক্রিকেট না খেলতে পারাটা দুঃখজনক। তবে আমার ওপর যে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে আমি তা মেনে নিচ্ছি। আমি ম্যাচ পাতানোর প্রস্তাব পাওয়ার বিষয়টি আকসুকে জানাইনি। নিজের দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করিনি। পৃথিবীর অন্যান্য খেলোয়াড়দের মতো আমিও দুর্নীতিমুক্ত ক্রিকেট চাই। আশা করি আমার মতো ভুল ভবিষ্যতে আর কেউ করবে না।

আইসিসির জেনারেল ম্যানেজার আলেক্স মার্শাল বলেন, সাকিব তার ভুল স্বীকার করেছে। তরুণরা যাতে ভবিষ্যতে এ ধরনের কাজে জড়িয়ে না পড়ে সে এ নিয়ে কাজ করবে বলে জানিয়েছে। তার এই প্রস্তাব পেয়ে আমরা আনন্দিত।