বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎসহ ৯টি প্রোডাক্ট তৈরি করার উদ্যোগ নিয়েছে মসিক

ময়মনসিংহ নগরীর ৩৩টি ওয়ার্ড এলাকার বর্জ্য থেকে এবার বিদ্যুৎসহ ৯টি প্রোডাক্ট তৈরি করার উদ্যোগ নিয়েছে সিটি কর্পোরেশন (মসিক)। ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনে দৈনিক উৎপাদিত বর্জ্য থেকে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে বর্জ্য ব্যবস্থাপনার পাশাপাশি বিদ্যুৎ উৎপাদন সম্ভব বলে মনে করেন ফিনল্যান্ডের প্রতিনিধি দল।

ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন এর মেয়র মো. ইকরামুল হক টিটুর দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনায় ময়মনসিংহের ময়লা-আবর্জনাই এখন সম্পদ বলে মনে করছেন নগরবাসী।

ময়মনসিংহবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি ছিল ব্রহ্মপুত্র সেতুর পূর্ব পাশে ময়মনসিংহ-শম্ভুগঞ্জ সড়ক ঘেঁষে ময়লাকান্দা রাস্তার পাশ থেকে অপসারণ করা হোক। মেয়র মো. ইকরামুল হক টিটু এ বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখছেন। তাই তিনি বিভিন্ন দাতা সংস্থাগুলোর সাথে আলোচনা করে ফিনল্যান্ডের একটি প্রতিনিধি দল এগিয়ে এসেছেন এবং তাদের একটি টিম বুধবার (১৬ অক্টোবর) ময়লাকান্দা সরোজমিনে পরিদর্শন করে গেছেন।

পরিদর্শনকালে টিমের সাথে কথা বলে জানা যায়, ময়লা আবর্জনা থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য প্রতিদিন ৪০০ মেট্রিক টন বর্জ্য লাগবে। যা ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের পক্ষে ৩৩টি ওয়ার্ড মিলিয়ে ৪০০ মেট্রিক টন বর্জ্য সংগ্রহ করা সম্ভব। প্রতিনিধি দল জানান, এখানকার ময়লা-আবর্জনাগুলোর মধ্য পলিথিনের সংখ্যায় বেশি। এই পলিথিন দিয়ে তেল এবং গ্যাস উৎপাদন সম্ভব বলে তারা মনে করছেন।

ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন সূত্রে জানা যায়, ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন এর মেয়র মো. ইকরামুল হক টিটুর দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনায় প্রতিটি বাড়ি থেকে ময়লা সংগ্রহের জন্য লোক নিয়োগ করা হয়েছে। ময়লা সংগ্রহের জন্য প্রতিটি ওয়ার্ডে ভ্যানগাড়ি এবং আধুনি নগরীর সুযোগ-সুবিধা সম্পন্ন বড় গাড়ি দেওয়া হয়েছে। ময়লা ফেলার জন্য ডাম্পিং স্টেশন করা হয়েছে। রাস্তাঘাট পরিষ্কার করার জন্য পরিচ্ছন্নতাকর্মী নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। বর্জ্যের প্রকার অনুযায়ী পৃথক পৃথক মডেলের ডাস্টবিন সরবরাহ করা হয়েছে। বাসা, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান, দোকানপাট, বাজার এবং সব অফিস-আদালতে বর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য ডাস্টবিন সরবরাহ করা হয়েছে। আবাসিক এলাকা, রাস্তার পাশ, প্লান্ট, নির্মাণ সাইট, দোকানের পাশের ময়লা ডাম্পিং করার জন্য ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিষয়ে জনসচেতনতা বাড়াতে বিভিন্ন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

সিটি কর্পোরেশন (মাসিক) প্রধান প্রকৌশলী মো. আনোয়ার হোসেন জানান, ঐতিহ্যবাহী এই শহরের দীর্ঘদিনের সমস্যা স্থায়ী সমাধানের জন্য ময়লা আবর্জনা থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন ও নিত্য প্রয়োজনীয় ০৯টি প্রোডাক্ট তৈরি হবে এইজন্য ফিনল্যান্ডের প্রতিনিধি দল সরজমিনে শহরের ময়লাকান্দা পরিদর্শন করেন।