আইএফসির বিশাল বিনিয়োগ ঘোষণা লুফে নেওয়ার অপেক্ষায় বাংলাদেশ

ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স করপোরেশন (আইএফসি) বেসরকারি খাতের উন্নয়ন বিনিয়োগ বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে। এ খাতে সারাবিশ্বে মোট এক হাজার বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ ঘোষণা করেছে সংস্থাটি। আইএফসির এ বিশাল বিনিয়োগ ঘোষণা লুফে নেওয়ার অপেক্ষায় বাংলাদেশের বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো।

আইএফসি এর আগে আরও অনেকগুলো বেসরকারি কোম্পানিতে বিনিয়োগ করেছে। যার ফিরতি বেশ ভালো। বাংলাদেশের একটি বেসরকারি কোম্পানি সেখানে বিনিয়োগ করে এর মধ্যে ১৯ মিলিয়ন ডলার নিয়েছে।

সংস্থাটি এদেশের বেসরকারি খাতের উন্নয়নে বিনিয়োগ আরও বাড়াতে চায়। ফলে সরকার মনে করছে বাংলাদেশে কর্মসংস্থানের পরিধি আরও বাড়বে।

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল শুক্রবার (১৮ অক্টোবর) যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটনে বিশ্বব্যাংক ও আইএমএফের বার্ষিক সভায় আইএফসির সঙ্গে বৈঠক করেছেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, বিনিয়োগের বিশাল ঘোষণা দিয়েছে আইএফসি। বিশ্বব্যাপী বিনিয়োগ আকার এক হাজার বিলিয়ন ডলার। এর আগে কয়েকটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান আইএফসির ঋণ নিয়ে কাজ করছে। সামনে অন্য কোম্পানিগুলো আইএফসির বিনিয়োগ লুফে নিতে পারে। ঋণে সুদহার ১০ শতাংশের কম হবে।

অর্থমন্ত্রী একই দিনে ইউএসএইড-এর প্রতিনিধির সঙ্গে বৈঠক করেন। তিনি জানান ইনকাম ট্যাক্স কালেকশন সক্ষমতা বৃদ্ধিতে ইউএসএইড সহায়তা করবে।

অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সচিব মনোয়ার আহমেদ বলেন, আমি কয়েকটি মিটিংয়ে অংশগ্রহণ করেছি।আমাদের সঙ্গে যারাই সাক্ষাৎ করেছে বিশ্বব্যাংক থেকে শুরু করে সবাই বলেছে আমাদের সক্ষমতা বেড়েছে। সবাই স্বীকৃতি দিয়েছে বাংলাদেশ সঠিক পথে রয়েছে।

‘বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশকে বাড়তি ঋণ দিতে উন্মুখ। সংস্থাটির অঙ্গভুক্ত প্রতিষ্ঠান আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা (আইডিএ) ২০১৮ এর মেয়াদ শেষ হচ্ছে ২০২০ সালে। তিন বছরে এ প্যাকেজের আওতায় সংস্থাটির প্রতিশ্রুতি ছিল ৪ দশমিক ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। বাংলাদেশ সরকার সক্ষমতার কারণে এই ঋণ খরচ করে ফেলেছে। আইডিএ-১৯ এ আমরা ভালো সহযোগিতা পাবো। আর এবারই আমাদের সবচেয়ে বড় সহযোগিতা আসবে বিশ্বব্যাংক থেকে।