মৌমাছির কারণে কলকাতা বিমানবন্দরে তিন ঘণ্টা আটকে ছিলেন তথ্যমন্ত্রী

মৌমাছির কারণে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদকে কলকাতা বিমানবন্দরে তিন ঘণ্টা আটকে থাকতে হয়েছে। তিনি এয়ার ইন্ডিয়ার একটি ফ্লাইটে করে আগরতলায় বাংলাদেশ সরকার আয়োজিত এক চলচ্চিত্র উৎসবে যোগ দিতে যাওয়ার পথে এ ঘটনা ঘটে।

কলকাতা টেলিগ্রাফের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, গতকাল রোববার সকাল ৯টা ৪০ মিনিটে ১৩৬ জন যাত্রী নিয়ে এয়ার ইন্ডিয়ার এআই-৭৪৩ ফ্লাইটটির উড়াল দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু দুইবার ট্যাক্সিয়িং শুরু করেও রানওয়ে থেকে ফিরে আসে উড়োজাহাজটি।

এয়ার ইন্ডিয়ার পক্ষ থেকে শুরুতে কারিগরি ত্রুটির কথা বলা হয়। কিন্তু বিমানের ভেতর বসে থেকে বিরক্ত হয়ে বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের সদস্যরা নেমে যেতে চাইলে কেবিন ক্রু দরজা খোলার চেষ্টা করেন। তখনই মৌমাছির বিষয়টি ধরা পড়ে।

পরে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা গিয়ে পানি ছিটিয়ে মৌমাছির ঝাঁকটিকে তাড়িয়ে দিলে স্থানীয় সময় দুপুর ১২টা ৪০ মিনিটে উড়োজাহাজটি কলকাতা ছাড়ে বলে কলকাতা টেলিগ্রাফের প্রতিবেদনে জানানো হয়।

ওই অনুষ্ঠানে যোগ দিতে যাওয়া বাংলাদেশের ১৮ সদস্যের প্রতিনিধি দলে তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ ও অভিনেত্রী রোকেয়া প্রাচী ছিলেন। বাংলাদেশ সরকারের আয়োজনে রোববার বিকেল থেকে শুরু হওয়া তিন দিনের বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উৎসবে যোগ দিতে আগরতলায় যাচ্ছিলেন তারা।

টেলিগ্রাফের প্রতিবেদনে বলা হয়, তিন ঘণ্টা বিমানের ভেতরে বসে থেকে বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের সদস্যরা বিরক্ত হয়ে উঠেছিলেন। কয়েকজন অভিযোগ করেছেন, সমস্যাটা কোথায়- সে বিষয়ে এয়ার ইনডিয়া কর্তৃপক্ষ তাদের কিছুই জানায়নি, তারা যেভাবে বিষয়টা সামলানোর চেষ্টা করেছে, তাতে পেশাদারিত্বের অভাব ছিল।

ফ্লাইট ছাড়ার অপেক্ষার মধ্যেই হাছান মাহমুদ টেলিফোনে কলকাতা মেট্রোকে জানান, দেরি দেখে তিনি উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান কিছুটা পিছিয়ে দিতে আয়োজকদের অনুরোধ করেছিলেন।

তথ্যমন্ত্রী মেট্রোকে বলেন, ‘জটিলতা যেহেতু হয়েছে, এয়ার ইন্ডিয়া কর্তৃপক্ষ যাত্রীদের অন্য কোনো উড়োজাহাজে তুলে দিলে বরং ভালো করত।’

বিমানবন্দর কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে টেলিগ্রাফ লিখেছে, ফ্লাইট কখন ছাড়বে নিশ্চিত হতে না পেরে বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের কয়েকজন বিকল্প ব্যবস্থা করার জন্য উড়োজাহাজ থেকে নামিয়ে দেওয়ার অনুরোধ করেন। কেবিন ক্রু তাদের নামিয়ে দেওয়ার জন্য দরজা খুলতে গিয়ে মৌমাছির ঝাঁক দেখতে পান।

ওই উড়োজাহাজের বাম দিকের উইন্ডস্ক্রিন ও জানালায় মৌমাছির ওই ঝাঁক আশ্রয় নিয়েছিল। এ অবস্থা দেখে ওই কেবিন ক্রু আর দরজা খুলে যাত্রী নামানোর সাহস করেননি।

প্রসঙ্গত, ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে এ বিমানবন্দরে জেট এয়ারের চারটি বিমান মৌমাছির কারণে ছয় ঘণ্টা বিলম্বিত হয়। ওই মাসেই ইনডিগোর আরেকটি ফ্লাইট ২১ মিনিট রানওয়েতে আটকে থাকে উইন্ডস্ক্রিনে মৌমাছির হানার কারণে।