বান্দরবানে সরকারী রাস্তার ইট তুলে নিল সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান

নিজের জমিতে পানি আসার কারনে কাউকে কিছু না বলে জেলা পরিষদের অর্থায়নে নির্মিত সরকারী রাস্তার ইট তুলে নিল বান্দরবান সদর উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান জামাল উদ্দীন চৌধুরী। বুধবার সকালে সদর উপজেলার লেমুঝিরি এলাকায় খেয়াং ছাত্রাবাসের জন্য নির্মিত ব্রীক সলিং রাস্তা থেকে এ ইট তুলে নেয়া হয়।

জানা গেছে, বান্দরবান সদর উপজেলার লেমুঝিরি এলাকায় জেলা পরিষদের অর্থায়নে নির্মিত খেয়াং হোস্টেলের সামনে ২০ লাখ টাকা ব্যয়ে ছাত্রদের হোস্টেলে যাওয়ার জন্য ২০১৮ সালে ৪০০ মিটার ব্রীক সলিং রাস্তা নির্মান করা হয়। বুধবার সকালে কাজের ঠিকাদার সিকিউরিটি বিল উত্তোলনের জন্য রাস্তার ছবি তুলতে গিয়ে দেখে রাস্তা থেকে কয়েকজন শ্রমিক ইট তুলে নিচ্ছে। পরে ঠিকাদার জানতে চাইলে শ্রমিকরা বলে জামাল চৌধুরী তাদের ইট তুলতে বলে।

নির্মান কাজের সাব ঠিকাদার আব্দুল মোমেন বলেন আমরা রাস্তা নির্মান করেছি একবছর হয়ে গেছে তাই আমরা সিকিউরিটি বিল নেয়ার জন্য জেলা পরিষদে জমা দিতে রাস্তার ছবি তোলার জন্য এসেছি এসে দেখছি রাস্তার ইট তুলে নেয়া হচ্ছে কিন্তু আমাদের কে কিছু বলেনি। আমরা জেলা পরিষদকে বলেছি বিষয়টা এখন তারা ব্যবস্থা নেবে। কারন আমরা রাস্তা নির্মান করেছি করে পরিষদ কে কাজ বুঝিয়ে ও দিয়েছি। কাজ করেছি এক বছর হয়ে গেছে এখন সিকিউরিটি তোলার সময় রাস্তার ইট তুলে নেয়ায় আমাদের সিকিউরিটি বিলও আটকে গেছে।

এদিকে ইট তুলে নেয়ার বিষয় স্বীকার করে সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান জামাল উদ্দীন চৌধুরী বলেন রাস্তাটি উচুঁ হওয়ার কারনে আশেপাশের মানুষের জমিতে পানি ঢুকে পড়ছে। এ কারনে আমি রাস্তাটি নিচু করে আবার ইট বিছিয়ে সংস্কার করে দিব। রাস্তার পাশের জায়গা গুলো আমার হোস্টেলের জায়গাটিও আমি বিক্রী করেছি এখনো আমার টাকা দেয়নি। রাস্তাটি নির্মান কারার সময় জেলা পরিষদ সদস্য ম্রাসা খেয়াংকে অনেকবার বলেছি ঠিকাদারকেও বলেছি তারা আমার কথা শুনেনি তাই বাধ্য হয়ে নিজেই রাস্তার সংস্কার কাজ করার জন্য ইট গুলো তুলেছি। মাটি কেটে ডাউন করে আবার ইট বিছিয়ে দিব।

যেহেতু জায়গা আমার তাই তারা না করলেও আমাকে করতে হবে। ওখানে অনেককে জায়গা বিক্রী করেছি তাদেরকে তাদের জায়গা বুঝিয়ে দিতে হবে কিন্তু রাস্তার কারনে তাদের জায়গা দিয়ে পানি যাওয়ায় তাদেরকে জায়গা বুঝিয়ে দিতে পারছিলাম না। তবে ইদের পরেই রাস্তাটি ঠিক করে দিব।

এবিষয়ে বান্দরবান জেলা পরিষদের নির্বাহী প্রকৌশলী মাহবুবুর রহমান বলেন রাস্তার ইট তুলে নেয়ার কথা শুনেছি এটি একটি অন্যায় কাজ কাউকে না বলে সরকারী রাস্তার ইট তুলে নেয়া অপরাধ। এব্যাপারে থানায় অভিযোগ দায়ের করার জন্য বলেছি।

 

সোহেল কান্তি নাথ, বান্দরবান প্রতিনিধি