যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণের স্বপ্ন পূরণ হচ্ছে ট্রাম্পের

যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্তে অবশেষে স্বপ্নের দেয়াল নির্মাণ করতে আর্থিক কোন সমস্যায় পড়তে হচ্ছে না মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে। কারণ দেশটির সর্বোচ্চ আদালত সামরিক বাহিনীর তহবিল ব্যবহার করে দেয়াল নির্মাণের অনুমতি দিয়েছে ট্রাম্প প্রশাসনকে।

শুক্রবার মার্কিন সুপ্রিম কোর্ট যুগান্ততকারী এই রায় প্রদান করে।  সংখ্যাগরিষ্ঠ রক্ষণশীল বিচারকদের রায় ট্রাম্পের পক্ষেই যায়।

প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালে নির্বাচনী প্রচারণার সময় মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তৎকালীন রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প। কিন্তু ক্ষমতাসীন হওয়ার পর থেকে তিনি কোনভাবেই তার এই নির্বাচনী ওয়াদা পূরণ করতে পারছিলেন না। বিরোধী ডেমোক্রেটদের বাধার কারণে তিনি এতদিন এই স্বপ্ন পূরণ করতে পারছিলেন না।  অবশেষে ২০২০ সালের নির্বাচনের আগে সুপ্রিম কোর্ট তার পক্ষে রায় দিয়ে নির্বাচনি প্রতিদ্বন্দ্বিতায় তাকে অনেকটা এগিয়ে রাখলেন।  উল্লেখ্য, ২০২০ সালেও দ্বিতীয় দফায় ক্ষমতাসীন হওয়ার জন্য প্রেসিডেন্ট পদে লড়াই করছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প।

সুপ্রিম কোর্টের এই ঘোষণার পরে মার্কিন প্রেসিডেন্ট এক প্রতিক্রিয়ায় এটিকে বিরাট বিজয় বলে উল্লেখ করেছেন।  পাশাপাশি তিনি এই রায়কে সীমান্ত নিরাপত্তা এবং আইনের শাসনের প্রতি তার প্রশাসনের করা পরিকল্পনার বড় জয় বলেও জানান। এর আগে নিম্ন আদালত দক্ষিণ সীমান্তে দেয়াল নির্মাণে সামরিক তহবিল ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিল।  কিন্তু সুপ্রিম কোর্ট নিম্ন আদালতের এই রায় উল্টে দেয়।

যে পাঁচ বিচারক দেয়াল নির্মাণে সামরিক তহবিল ব্যবহারের জন্য ট্রাম্প প্রশাসনকে অনুমতি দিয়েছেন তারা তাদের এই সিদ্ধান্তের ব্যাপারে বিস্তারিত কিছু জানাননি।

এখন সুপ্রিম কোর্টের অনুমতি পাওয়ার ফলে প্রায় ২.৫ বিলিয়ন ডলারের সামরিক তহবিল মেক্সিকো-যুক্তরাষ্ট্র সীমান্তে দেয়াল নির্মাণে ব্যবহার করতে পারবেন ট্রাম্প।

এদিকে হাউস স্পিকার ডেমোক্রেট নেত্রী ন্যান্সি পেলোসি শুক্রবার রাতে দেয়া এক বিবৃতিতে সামরিক বাহিনীর প্রয়োজন না মিটিয়ে তাদের তহবিল দিয়ে সীমান্তে অকার্যকর এবং অযথা দেয়াল নির্মাণের জন্য বিলিয়ন ডলার খরচ করার পরিকল্পনা করায় ট্রাম্পের সমালোচনা করেন।  তিনি জানান, সুপ্রিম কোর্টের এই সিদ্ধান্ত সংবিধান এবং আইনের ক্ষতিসাধন করছে।