ঢাকায় পুলিশ বক্সের কাছে বোমা পুঁতে রাখার দায় স্বীকার করল আইএস

রাজধানী ঢাকায় পুলিশের দুটি চেক পয়েন্টের সামনে বোমা পুঁতে রাখার ঘটনার দায় স্বীকার করেছে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট (আইএস)।

বৃহস্পতিবার (২৫ জুলাই) যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সাইট ইন্টেলিজেন্স এক টুইট বার্তায় এই তথ্য জানিয়েছে বলে সংবাদ প্রকাশ করেছে বিবিসি। আইএস দাবি করেছে যে ঢাকার দুটি পুলিশ চেক পয়েন্টে হামলার উদ্দেশ্যে এই বোমা দুটি স্থাপন করা হয়েছিল।

তবে এ ঘটনায় আইএসের সম্পৃক্ততার তথ্যের বিষয়ে এখনো নিশ্চিত নন পুলিশ। বিস্ফোরণের আগেই গত বুধবার রাতে খামারবাড়ি ও পল্টন এলাকা থেকে বোমা দুটি উদ্ধার করেছিল পুলিশ।

পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম বিভাগের স্পেশাল অ্যাকশন গ্রুপের উপকমিশনার মোহাম্মদ সানোয়ার হোসেন বলেন, এর পেছনে আইএস, জেএমবি বা কোনো সংঘবদ্ধ দল জড়িত কিনা- তা খতিয়ে দেখতে তদন্ত চলছে।

তবে এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত সন্দেহভাজন কাউকেই চিহ্নিত করা যায়নি বলেও জানিয়েছেন তিনি। সানোয়ার হোসেন বলেন, “আগে এ ধরনের কোনো ঘটনা ঘটলে আমরা কিছু ধরন দেখেই বলে দিতে পারতাম যে এটা কাদের কাজ হতে পারে। কিন্তু এবারের ঘটনাগুলো আইডেন্টিক্যাল না।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা বিভিন্ন তথ্য, সংগঠনগুলো কার্যক্রম সেগুলো অ্যানালাইসিস করছি। কিন্তু আমাদের হাতে আসা তথ্যের সঙ্গে তাদের সংশ্লিষ্টতা প্রশ্নে অনেক অসামঞ্জস্যতা আছে।’

তিনি বলেন, ‘তাই আমরা পুরো বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পরই গণমাধ্যমকে সব জানাবো।’ তার মতে, আইএস যে ধরনের বিস্ফোরক ডিভাইস ব্যবহার করত সেগুলোর ‘মেকানিক্যাল ফিচারে বেশ মিল থাকত। কিন্তু এবারে তেমনটা দেখা যায়নি।

গত ২৪শে জুলাই রাত ১২টার দিকে খামারবাড়ি মোড়ের পুলিশ চেকপোস্টের কাছে থেকে এই বোমা সদৃশ বস্তুটি উদ্ধার করা হয়। সেখানকার মেট্রোরেল কর্মীরা সন্দেহজনক এই বস্তুটি দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশের বোমা নিষ্ক্রিয়কারী দল ঘটনাস্থলে গিয়ে বস্তুটি উদ্ধার করে।

এর আগে রাত ১১টার দিকে ঢাকার পল্টন মোড় এলাকার ট্রাফিক পুলিশ বক্সের কাছ থেকে আরেকটি বোমা সদৃশ বস্তু উদ্ধার করা হয়। একটি বাদামি কার্টনে বোমাটি ঢাকা অবস্থায় ছিল। পরে দুটি বোমারই ‘নিয়ন্ত্রিত বিস্ফোরণ’ ঘটান বোমা নিষ্ক্রিয়কারী দলের সদস্যরা।

পুলিশের চেক পয়েন্টের বাইরে থেকে এই বোমা পুঁতে রাখার বিষয়ে আইএস দায় স্বীকার করেছে বলে সাইট ইন্টেলিজেন্সের টুইট বার্তায় দাবি করেছে।