‘প্রিয়া সাহা অভিযোগ প্রমাণ করতে না পারলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে’

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশি নারী প্রিয় সাহা যে তথ্য দিয়েছেন তা অসত্য এবং উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। তিনি বলেন, প্রিয়া সাহাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। অভিযোগ প্রমাণ করতে না পারলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আজ শনিবার সকালে রাজধানীর ধানমন্ডিতে নিজ বাসায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এ মন্তব্য করেন। তিনি আরও বলেন, এতে তার কোনো ব্যক্তিগত উদ্দেশ্য আছে কি না তা খতিয়ে দেখা হবে।

আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, ‘আমাদের সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি যে স্বপ্ন দেখতেন একটা অসাম্প্রদায়িক চেতনার বাংলাদেশ তৈরি হবে, সেটা নির্মাণে আমরা সফল হয়েছি। সেজন্য আজ সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের আস্থা আসছে। সেজন্যই তাদের সংখ্যা এখন বেড়েছে।’

এ সময় সংখ্যালঘুদের সংখ্যা ৮+ থেকে এখন ১০+ হয়েছে বলেও জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

গত বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের কার্যালয় হোয়াইট হাউসে ধর্মীয় নিপীড়নের শিকার হওয়া ১৯টি দেশের ২৭ জন ব্যক্তির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ওই সাক্ষাৎকালে ট্রাম্পের কাছে নিজের দেশ সম্পর্কে ‘ভয়ঙ্কর’ অভিযোগ করেন প্রিয়া।

তিনি ট্রাম্পকে বলেন, ‘স্যার, আমি বাংলাদেশ থেকে এসেছি। সেখানে ৩৭ মিলিয়ন হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান বিলীন হয়ে গেছে। দয়া করে আমাদের সাহায্য করুন। আমরা বাংলাদেশেই থাকতে চাই। সেখানে এখনো ১৮ মিলিয়ন সংখ্যালঘু মানুষ রয়েছে। আমার অনুরোধ, দয়া করে আমাদের সাহায্য করুন। আমরা আমাদের দেশ ছাড়তে চাই না। শুধু থাকার জন্য সাহায্য করুন।’

ওই নারী আরও বলেন, ‘আমি আমার ঘরবাড়ি হারিয়েছি, তারা আমার ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দিয়েছে। তারা আমার জমিজমা দখল করে নিয়েছে। কিন্তু তারা (প্রশাসনবা সরকার) কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি এখন পর্যন্ত।’

এ সময় ট্রাম্প ওই নারীকে প্রশ্ন করেন, ‘কারা জমি দখল করেছে, কারা ঘরবাড়ি দখল করেছে?’ উত্তরে ওই নারী বলেন, ‘তারা মুসলিম মৌলবাদি গ্রুপ। তারা সব সময় রাজনৈতিক আশ্রয় পায়। সবসময়ই পায়।’