পুরান ঢাকার ওয়াসার পানিতে পাওয়া গেছে মল ও ব্যাকটেরিয়া!

ঢাকা শহরের নাগরিকদের পানি সরবরাহকারী সংস্থা ঢাকা ওয়াসার ১০টি মডস জোনের মধ্যে ৪টি এবং সায়েদাবাদ ও চাঁদনিঘাট এলাকা থেকে সংগৃহীত ৮টি পানির নমুনাতে দূষণ পাওয়া গেছে। হাইকোর্টের নির্দেশে গঠিত কমিটির প্রতিবেদনে এমন তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।

আইসিডিডিআরবি, বুয়েট ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের পরীক্ষার একটি প্রতিবেদনে এমনটাই বলা হয়েছে।

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, এসব এলাকার পানিতে ব্যাকটেরিয়া, উচ্চমাত্রার অ্যামোনিয়া পাওয়া গেছে। এমনকি রাজধানীর এই পরিষেবা সংস্থাটির পানির কিছু কিছু নমুনাতে মলের অস্তিত্ব পর্যন্ত পাওয়া গেছে।

সূত্রমতে, আগামী রবিবার তদন্ত কমিটি তাদের প্রতিবেদন হাইকোর্টে দাখিল করবে। হাইকোর্ট গত ২১ মে এক আদেশে ঢাকা ওয়াসার পানির উৎস, ১০টি বিতরণ জোন, গ্রাহকদের অভিযোগের ভিত্তিতে ১০টি ঝুঁকিপূর্ণ স্থান এবং দৈবচয়নের ভিত্তিতে ১০টি স্থান থেকে নমুনা সংগ্রহ করার নির্দেশ দেন। এর পর ৩৪টি স্থান থেকে পানির নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এসব নমুনা আইসিডিডিআরবি, বুয়েট ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) অণুজীব বিজ্ঞান বিভাগের ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষা করা হয়।

গত বছরের ৬ নভেম্বর হাইকোর্টের দেওয়া এক নির্দেশে ঢাকা ওয়াসার পানি পরীক্ষার জন্য চার সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়, বুয়েট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও আইসিডিডিআরবি’র প্রতিনিধির সমন্বয়ে গঠিত এ কমিটির সদস্যদের নামের তালিকা ১৮ এপ্রিল অ্যাটর্নি জেনারেল কার্যালয়ে পাঠানো হয় মন্ত্রণালয়ের তরফে। এরই ধারাবাহিকতায় আদালত গত ২১ মে পানির নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার নির্দেশ দেন।