অবকাঠামো শক্তিশালী করতে দুটি প্রকল্পে অনুদান দিচ্ছে জাপান

মানবসম্পদ উন্নয়ন ও জরিপ অধিদফতরের অবকাঠামো শক্তিশালী করতে দুটি প্রকল্পে অনুদান দিচ্ছে জাপান। এর পরিমাণ হচ্ছে প্রায় ১২৬ কোটি ৫৫ লাখ টাকা।

এজন্য রোববার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলনকক্ষে একটি অনুদান চুক্তি হয়েছে। এতে সই করেন অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সচিব মনোয়ার আহমেদ এবং জাপান আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থার (জাইকা) চিফ রিপ্রেজেনটেটিভ হিতোয়েশি হিরাতা ও বিনিময় নোট সই করেন মনোয়ার আহমেদ এবং জাপানের রাষ্ট্রদূত হিরোয়েশি ইজুমি।

চুক্তি অনুষ্ঠানে জানানো হয়, প্রথম প্রকল্পটির মাধ্যমে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের আওতায় বাংলাদেশ জরিপ অধিদফতরে অবকাঠামো উন্নয়ন করা হবে। এটি বাস্তবায়নে ব্যয় হবে ৯৩ কোটি ৫৫ লাখ টাকা। চলতি বছর থেকে ২০২০ সালের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে বাংলাদেশ জরিপ অধিদফতর।

এছাড়া ‘দ্য প্রজেক্ট ফর হিউম্যান রিসোর্সেস ডেভেলপমেন্ট স্কলারশিপ’ শীর্ষক প্রকল্পটি বাস্তবায়নে ব্যয় হবে প্রায় ৩৩ কোটি টাকা। অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগে এ প্রকল্পটি ২০০১ সাল থেকে চলমান আছে।

এটি ২০২০ সালের জুন পর্যন্ত চলমান থাকবে। জাপান সরকার প্রতিবছর এ প্রকল্পে অনুদান সহায়তা প্রদান করে এবং দেশটির সঙ্গে বিনিময় নোট ও অনুদান চুক্তি সই হয়ে থাকে। প্রকল্পটির অনুকূলে ২০১৮ সাল পর্যন্ত মোট ৫ হাজার ৫৫২ মিলিয়ন জাপানি ইয়েন অনুদান সহায়তা পাওয়া গেছে।

এ প্রকল্পের আওতায় বিসিএস ক্যাডার কর্মকর্তা এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রথম শ্রেণীর কর্মকর্তাদের জাপানের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই বছর মেয়াদি মাস্টার্স কোর্সে অধ্যয়নের জন্য বৃত্তি দেয়া হয়।

এ প্রকল্পের অধীনে জাপানে অধ্যয়নের সুযোগপ্রাপ্ত কর্মকর্তাগণকে প্রদত্ত বৃত্তির শতভাগ অর্থ দেশটির সরকারের পক্ষে জাইকা পরিশোধ করে থাকে।

এ পর্যন্ত ২৯৩ জন সরকারি কর্মকর্তা জাপানে বিভিন্ন কোর্সে মাস্টার্স প্রোগ্রাম সম্পন্ন করেছেন। বর্তমানে ৬০ কর্মকর্তা দেশটিতে অধ্যয়নরত এবং ৩০ কর্মকর্তা সর্বশেষ ব্যাচে অধ্যয়নের জন্য নির্বাচিত হয়েছেন।

এছাড়া ২০১৮ সাল থেকে জেডিএস পিএইচডি কোর্স চালু হওয়ার পর বর্তমানে ৩ কর্মকর্তা জাপানে অধ্যয়নরত আছেন এবং আরও ৩ জন কর্মকর্তা পিএইচডি প্রোগ্রামের জন্য নির্বাচিত হয়েছেন।