রাজধানীর বসুন্ধরা সিটি শপিংমলে অবৈধ পণ্য!

রাজধানীর অভিজাত শপিংমল বসুন্ধরা সিটিতে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর অভিযানে নামিদামি সুপারসহ একাধিক কসমেটিকসের দোকানে অবৈধ বিদেশি প্রসাধনী সামগ্রী উদ্ধার। সোমবার (২০ মে) দুপুরে এই অভিযান পরিচালনা করেন অধিদফতরের ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার।

এ সময় আলমাস, বিবিবি কসমেটিকস মুস্তাফা মার্টসহ একাধিক প্রতিষ্ঠানকে দুই লাখ ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

এবিষয়ে মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার আলমাস জানান, মুস্তাফা মার্ট, বিবিবি কসমেটিকস- এগুলো নামিদামি প্রতিষ্ঠান। এসব প্রতিষ্ঠানের ওপর মানুষের আস্থা ও বিশ্বাস রয়েছে।  কিন্তু মানুষের সেই সরলতাকে পুঁজি করে অবৈধ পন্থায় আনা (লাগেজ পার্টির) বিভিন্ন বিদেশি প্রসাধনী সামগ্রী বিক্রি করছে প্রতিষ্ঠানগুলো।

এসব প্রসাধনীর গায়ে আমদানিকারকের নামও লেখা নেই। এটি আসলে ব্র্যান্ডের পণ্য নাকি কেরানীগঞ্জ, জিঞ্জিরা ও চকবাজারে তৈরি নকল কসমেটিকস, তার কোনও নিশ্চয়তা নেই। এছাড়া এসব পণ্যে ইচ্ছেমতো মূল্য লিখে বিক্রি করছে। ফলে একদিকে ভোক্তাদের ঠকাচ্ছে, অন্যদিকে রাজস্ব ফাঁকি দিচ্ছে, যা আইন অনুযায়ী দণ্ডনীয়।

তিনি আরও জানান, বসুন্ধরা সিটির কসমেটিকসের দোকানে অভিযান এবং বিদেশি বিভিন্ন অবৈধ কসমেটিকস, ব্যাগ ইত্যাদি বিক্রির অপরাধে আলমাসকে এক লাখ টাকা, মুস্তাফা মার্টকে এক লাখ টাকা, বিবিবি কসমেটিকসকে এক লাখ টাকা, সেভলি কসমেটিকসকে ৫০ হাজার টাকা, নিউর কসমেটিকসকে ৫০ হাজার টাকা এবং আমরিন ফ্যাশনকে ১০ হাজার টাকা জরিমানাসহ দোকানটি সাময়িক বন্ধ রাখা হয়। একই সঙ্গে প্রতিষ্ঠানগুলোকে সতর্ক করা হয়েছে। পরবর্তীতে এ ধরনের অপরাধ করলে আইন অনুযায়ী তাদের দ্বিগুণ জরিমানাসহ দোকান সিলগালা করে দেওয়া হবে।