পঞ্চগড়ে মরিচের বাম্পার ফলনেও কৃষকের মুখে নেই হাসি
 
পঞ্চগড়ে মরিচের টেপা পচা রোগে বিপাকে কৃষক। জেলার সবকটি উপজেলায় মরিচে এবার এই রোগ দেখা দেয়। যা মরিচের অ্যানথ্রাকনোজ রোগ নামেও পরিচিত।

কম সময় এবং কম খরচে মরিচের আবাদে লাভের মাত্রা বেশি। তাই গত কয়েক বছর থেকে জেলার অনেক কৃষক ধান চাষের পরিবর্তে মরিচ চাষে ঝুঁকছে।

এবার টেপা পচা রোগ ঠেকাতে কৃষকরা বিভিন্ন ধরণের কীটনাশক স্প্রে করলেও কিছুতেই ফল মিলছে না। গাছেই মরিচ পচে যাওয়ার কারণে এবার আগাম মরিচ সংগ্রহ করে তা শুকানোর কাজে ব্যস্ত সময় পাড় করছেন কৃষকেরা।

কৃষকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, অনেকেই স্থানীয় বিভিন্ন এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে মরিচ চাষ করেছেন। কিন্তু মরিচের টেপা পচা রোগের কারণে লাভতো হবেই না বরং আসল উঠবে কিনা সেই শঙ্কায় দিন পাড় করছেন। ঋণের বোঝা তাই চলতি মৌসুমে কৃষকদের পিছু ছাড়বে না বলে ধারণা করা হচ্ছে।

জেলা কৃষি বিভাগের পরিচালক শামসুদ্দিন মৃধা জানান, এবার জেলার ১০৪৪০ হেক্টর জমিতে বাঁশগাইয়া, বিন্দু, হট মাষ্টারসহ স্থানীয় জাতের মরিচের চাষ করা হয়েছে, যা গত বছরের তুলনায় প্রায় ১ হাজার হেক্টর বেশী। ফলন ভাল হলেও আবহাওয়ার কারণে মরিচ পচে যাওয়ায় এবার আশানুরূপ লাভ হবে না। যদিও হেক্টর প্রতি ২ টন শুকনো মরিচ সংগ্রহ করা যাবে বলে আশা করছে কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ

নাজমুস সাকিব মুন, পঞ্চগড় প্রতিবিধি