সুন্দরী পোলিং অফিসার থাকায় বুথে ভোট পড়েছে ১০০ শতাংশ!

হলুদ শাড়ি, সানগ্লাস পরে হাসিমুখ, দেখতে বেশ সুন্দরী। তিনি বলিউডের কোনো নায়িকা নন। নাম রীনা দ্বিবেদী। লক্ষ্ণৌয়ের নারী পোলিং অফিসার। দেখে বোঝার উপায় নেই যে এই মহিলার ১৩ বছরের মেয়ে রয়েছে। দু’হাতে ইভিএমের বাক্স। ভারতের লোকসভা নির্বাচনে এমনই একটি ছবি ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। রাতারাতি ছবিটি ভাইরাল হওয়ার পর জল্পনা শুরু হয় তাকে নিয়ে। তিনি কে? কী তার পরিচয়.. ইত্যাদি।

ছবি দেখে অনেকেই ধরে নেন তিনি একজন ভোটকর্মী (পোলিং অফিসার)। প্রথমে জানা যায়, তার নাম নলিনী সিংহ। পরে জানা যায়, নলিনী সিংহ নয়, তার নাম রিনা দ্বিবেদী। উত্তরপ্রদেশের লখনউয়ের বাসিন্দা। সেই রাজ্যের পিডব্লিউডি বিভাগের জুনিয়র অ্যাসিসট্যান্ট। ৩২ বছর বয়সী রিনার নবম শ্রেণিতে পড়ুয়া এক ছেলে রয়েছে, নাম অদিত।

লোকসভা নির্বাচনের পঞ্চম দফার ভোটে দায়িত্ব পান রিনা। ভোটের দিন তার পরনে ছিল হলুদ শাড়ি, সানগ্লাস। গলায় ঝুলছিল পরিচয়পত্র। মুহূর্তেই ভাইরাল হয়ে যায় তার সেই ছবি। সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে সুন্দরী পোলিং অফিসার রিনা দায়িত্ব পালন করায় ওই বুথে প্রায় ১০০ শতাংশ ভোট পড়েছে।

তবে সাংবাদিকদের রিনা জানিয়েছেন, তার কারণেই এত ভোট পড়েছে কি না -তা তিনি জানেন না। তবে ভোটারদের উপস্থিতি ভালো ছিল। জানা যায়, ওই কেন্দ্রে ৭০ শতাংশ ভোট পড়েছে।

নিজের ছবি ভাইরাল হওয়ার প্রসঙ্গে ওই পলিং অফিসার বলেন, ‘অল্প বয়সেই আমার বিয়ে হয়েছে। ধীরে ধীরে নিজের কেরিয়ার তৈরি করেছি। লোকে আমায় বেশ পছন্দ করছে -এটা ভেবেই ভালো লাগছে। উপভোগ করছি বিষয়টি। কে চায় না সকলের নজরে আসতে? আমি খুব খুশি।’

বুথে ভোটারদের উপস্থিতি নিয়ে সুন্দরী এ পোলিং অফিসার আরও বলেন, ‘এই প্রথম নয়, এর আগেও ভোটের দায়িত্ব পড়েছিল। ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচন, ২০১৭ সালের বিধানসভা নির্বাচনেও কাজ করেছি। কিন্তু এবার যে এক ক্লিকেই রাতারাতি সেলিব্রিটি হয়ে যাব ভাবতে পারিনি।’

ইতোমধ্যে তাকে অনেকেই সিনেমায় অভিনয়ের জন্য পরামর্শ দিচ্ছেন -সে তথ্যও জানিয়েছেন তিনি।

যথেষ্ট ফিটনেস ও ডায়েট করা রিনা বলেন, ‘বেসরকারি সংস্থার কর্মসংস্কৃতি যথেষ্ট শৃঙ্খলা রয়েছে। আমিও শৃঙ্খলা মেনে চলি। আর সেই ধারাটাকেই বর্তমান কাজের জায়গায় নিয়ে এসেছে। সম্ভবত আমার এই শৃঙ্খলার জন্যই বসরা প্রশংসা করেন।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here