ছোট ভাইকে পদ দেওয়ায় শোভনের বিরুদ্ধে স্বজনপ্রীতির অভিযোগ

 ২০১৮ সালের ১১ ও ১২ মে ছাত্রলীগ ২৯ তম জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে নিজেরা কমিটি করতে ব্যর্থ হলে ৩১ জুলাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাংগঠনিক অর্পিত ক্ষমতাবলে রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভনকে সভাপতি এবং গোলাম রাব্বানীকে সাধারণ সম্পাদক করে কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণা করেন।

দীর্ঘ এক বছর পর সোমবার (১৩ মে) ছাত্রলীগের ৩০১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কেন্দ্রীয় কমিটি প্রকাশ করা হয়। কমিটিতে মাদকাসক্ত, বিবাহিত, চাকরিজীবী, বিএনপি পরিবারের সন্তানদের পদ দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ বঞ্চিতদের। ছোট ভাই ছোটনকে পদ দেওয়ার কারণে শোভনের বিরুদ্ধে স্বজনপ্রীতির অভিযোগও তুলেছেন তারা।

ছাত্র রাজনীতির মাঠে শোভনের আপন ছোট ভাই ছিলেন নিষ্ক্রিয়। অথচ গেল এক বছরেই তাকে সবাই চেনে। সেটাও ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভনের কল্যাণে। এই পরিচয়েই পরিচিত জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) শিক্ষার্থী রাকিনুল হক চৌধুরী ছোটন।

এবার ছোটনকে ছাত্রলীগের গুরুত্বপূর্ণ পদে বসিয়েছেন শোভন। কেন্দ্রীয় কমিটিতে তাকে আন্তর্জাতিক সম্পাদকের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে দিয়ে পদ বন্টনে শোভনের বিরূদ্ধে স্বজনপ্রীতির অভিযোগ তুলেছেন ছাত্রলীগের পদবঞ্চিত কর্মীরা। ছোটন ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সমাজসেবা সম্পাদক ছিলেন।

ছোট ভাইয়ের পদ পাওয়ার বিষয়ে রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভনকে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি ফোন ধরেননি।

এদিকে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি পুনর্গঠনের দাবিতে ৪৮ ঘণ্টার সময় বেঁধে দিয়েছেন পদবঞ্চিতরা। তা না করা হলে একযোগে পদত্যাগের হুমকি দিয়েছেন তারা। মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে সংবাদ সম্মেলন করে এই হুমকি দেওয়া হয়। সেখানে ছাত্রলীগের বিভিন্ন পর্যায়ের প্রায় দুই শতাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।