বিরতিহীন বনলতা এক্সপ্রেসে বাধ্যতামূলক খাবারের ব্যবস্থা বাতিল

রাজশাহী-ঢাকা-রাজশাহী বিরতিহীন বনলতা এক্সপ্রেস ট্রেনে বাধ্যতামূলক খাবারের ব্যবস্থা বাতিল করা হয়েছে। একই সঙ্গে ভাড়া কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। আগামী ১৮ মে থেকে এ সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে। এ ছাড়াও এদিন থেকে ট্রেনের ভাড়াও কমছে বলে জানিয়েছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ।

গত বৃহস্পতিবার রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের নেয়া সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, বিরতিহীন এই ট্রেনের ভাড়া নতুন করে এসি চেয়ার ৭২৫ এবং শোভন ৩৭৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে বলে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে।

শুরু থেকে বনলতা এক্সপ্রেসের টিকিটের সঙ্গে বাধ্যতামূলক খাবারের মূল্য ১৫০ টাকা আদায় করা হয়। খাবারে দেয়া হয় সিঙ্গাড়া, বার্গার, আপেল, এক পিস কেক ও এক বোতল পানি। তবে শুরুতেই খাবারের মান নিয়ে যাত্রীদের মধ্যে অসন্তোষ দেখা দেয়। দাবি উঠে, খাবার বাধ্যতামূলক না করে চাহিদাভিত্তিক সরবরাহ করার।

এ অবস্থায় রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, রাজশাহী-২ সদর আসনের সাংসদ ফজলে হোসেন বাদশা এবং রাজশাহী-৬ আসনের এমপি ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী খাবার বাধ্যতামূলকের সিদ্ধান্ত বাতিলে রেলমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেন এবং চিঠি দেন। এর প্রেক্ষিতে রেলওয়ে বাধ্যতামূলক খাবার বাতিলে সিদ্ধান্ত নেয় বলে পশ্চিমাঞ্চল রেল কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত ২৫ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সে উদ্বোধনের পর ২৭ এপ্রিল থেকে বাণিজ্যিক যাত্রা শুরু করে বিরতিহীন বনলতা এক্সপ্রেস। শুরু থেকে এর টিকিটের দামের সঙ্গে ১৫০ টাকার খাবার বিলও যুক্ত করা হয়। যাত্রীদের জন্য এই খাবার সরবরাহ রেলওয়ের পক্ষ থেকে সৌজন্যমূলক বলা হলেও এর মূল্য পরিশোধ বাধ্যতামূলক করা হয়েছিল। অত্যাধুনিক এই ট্রেনটিতে বাংলাদেশ রেলওয়ের প্রথম নিজস্ব ক্যাটারিং অ্যান্ড ট্যুরিজম সার্ভিসেসের (বিআরসিটিএস) মাধ্যমে খাবার সরবরাহ করা হয়।