বাড়ির পাশে আম কুড়াতে গিয়ে ধর্ষণ ও খুনের শিকার

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার চরকাঁকড়া ইউনিয়নে নাজমুন নাহার ঝুমুর নামে ৬ষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় মামলা হয়েছে। শনিবার রাতে শিশুটির বাবা আব্দুল হানিফ অজ্ঞাতদের আসামি করে মামলা দায়ের করেছেন।কোম্পানীগঞ্জ থানা পুলিশের ওসি আসাদ্দুজামান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার রাতে ব্যাপক ঝড়ে বাড়ির আশপাশে প্রচুর আম পড়ে। শনিবার সকাল ৬টার দিকে দুই মামাতো বোনকে সঙ্গে নিয়ে ঝুমুর বাড়ির পাশে আম কুড়াতে যায়। কিছুক্ষণ পর দুই বোনকে বাড়িতে পাঠিয়ে দিয়ে ঝুমুর থেকে যায়।

পরে সকাল ৮টার দিকে প্রতিবেশী এক নারী বাড়ির পাশের খালপাড়ে গাছের ডাল তুলতে গিয়ে ঝুমুরকে পানিতে পড়ে থাকতে দেখে চিৎকার দেন। এ সময় বাড়ির লোকজন গিয়ে অর্ধনগ্ন অবস্থায় ঝুমুরকে পানি থেকে তুলে নিয়ে আসেন এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের খবর দেন। পরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও নারী সদস্য এসে উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশে খবর দেন।

খবর পেয়ে শনিবার বিকেলে জেলা পুলিশ সুপার, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও কোম্পানীগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন ও মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে পাঠান।

ওসি জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে শিশুটিকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে। তবে সঠিক বিষয়টি নির্ণয়ে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট এলে মূল কারণ জানা যাবে।

নিহত ঝুমুর ওই ইউনিয়নের তালতলী এলাকার আব্দুল হানিফের মেয়ে। সে স্থানীয় একটি বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে পড়তো।