টাঙ্গাইলে চিকিৎসার নামে নববধূকে ধর্ষণ করলো ‘ভণ্ডপীর’

টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে চিকিৎসার নামে এক নববধূকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে আব্দুল মজিদ নামে এক ‘ভন্ডপীরের’ বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক ক্ষোভ ও চাঞ্চ্যল্যের অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। মঙ্গলবার (৩০ এপ্রিল) বিকালে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ওই নববধূকে উদ্ধার করে পুলিশি হেফাজতে নেওয়া হয়েছে এবং জিজ্ঞাসাবাদের জন্য অভিযুক্ত ওই ভণ্ডপীরের ছেলে শাহদত হোসেনকে(৩০) আটক করেছে।

তবে ঘটনার পর থেকে ভণ্ডপীর আব্দুল মজিদ(৫০) পলাতক রয়েছেন।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী উপজেলার পৌরসভাধীন হবিপুর গ্রামের সম্প্রতি বিয়ে হওয়া জনৈক নববধূকে(২০) পাশের বাড়ির ভণ্ডপীর আব্দুল মজিদ চিকিৎসার নামে একাধিকবার ধর্ষণ করে। এ বিষয়টি ভুক্তভোগী ওই নববধূ প্রথম দিকে লোকলজ্জার ভয়ে গোপন রাখলেও পরবর্তীতে তার স্বামী ও শাশুড়িকে জানায়।

এরপর ওই নববধূর ধর্ষণের ঘটনাটি এলাকার মধ্যে জানাজানি হয়ে যায়। অবস্থা বেগতিক দেখে ঘটনার নায়ক ভণ্ডপীর আব্দুল মজিদ বিষয়টি ধামাচাপা দিতে এক প্রকার মরিয়া হয়ে উঠেন।

এ ব্যাপারে ধনবাড়ী পৌর সভার ৫নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাই ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, বিষয়টি উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা চেয়ারম্যানকে অবহিত করা হয়েছে।

এ বিষয়ে ধনবাড়ী থানার ওসি মজিবর রহমান গণমাধ্যমকে জানান, খবর পাওয়ার মাত্রেই অভিযান চালিয়ে ভিকটিমকে উদ্ধার করা হয়েছে এবং জিজ্ঞসাবাদের জন্য ভণ্ডপীরের ছেলেকে আটক করা হয়েছে। ঘটনার মূল অভিযুক্ত ওই ভণ্ডপীর আব্দুল মজিদকে গ্রেফতার করতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। এ ঘটনায় একটি মামলা করা হয়েছে।