সিরাজ উদ্দৌলার নির্দেশে আগের রাতেই কেরোসিন-ম্যাচ রেখেছিল নুরুদ্দিন ও শামীম

মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে (১৮) যৌন নিপীড়নের পর কেরোসিন ঢেলে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় আগের রাতেই কেরোসিন ও ম্যাচ রেখে এসেছিল হত্যাকারীরা। অধ্যক্ষ সিরাজ উদ্দৌলার দুই সহযোগী নুরুদ্দিন ও শাহাদাত হোসেন শামীম আগের রাতে কেরোসিন ও ম্যাচ রেখে এসেছিল। তারা দুইজনই মামলার এজাহারভুক্ত আসামি। ইতিমধ্যে নুরুদ্দিন এবং শামীমকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একটি সূত্র জানায়, গত ৬ এপ্রিল আলিম পরীক্ষা কেন্দ্রে রাফিকে পুড়িয়ে মারতে বহিষ্কৃত অধ্যক্ষ সিরাজ উদ্দৌলার সহযোগীরা অংশ নিয়েছে- এটা এক রকম নিশ্চিত। এমনকি এ ঘটনাটি পুরোপুরি পরিকল্পিত।

ধারণা করা হচ্ছে, তারা দু’জন পরীক্ষার আগের দিন রাতে ঘটনাস্থল ‘শেল্টার হাউস’র ছাদে কেরোসিন এবং ম্যাচ রেখে এসেছিল। এ ঘটনায় সরাসরি জড়িত যে চারজন বোরকা পরা ব্যক্তির কথা বলা হয়েছে তাদের মধ্যে তিনজন পুরুষ এবং একজন নারী ছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে।

যখন সবাই রাফির শরীরের আগুন নেভাতে ব্যস্ত তখন তারা বোরকা খুলে মাদ্রাসার পূর্ব অথবা দক্ষিণ দিকের দেয়াল টপকে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় শুরু থেকে সোনাগাজী থানার ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনের বিরুদ্ধে তদন্ত ভিন্ন খাতে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ ওঠে। তাকে প্রত্যাহারের পর তার বিরুদ্ধেও তদন্ত শুরু করেছে প্রশাসন।

এদিকে মানবাধিকার কমিশনের সংশ্লিষ্টরা শুক্রবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে বলেছে, আগে যৌন নিপীড়নের ঘটনায় কার্যকর ব্যবস্থা নেয়া হলে রাফিকে পুড়িয়ে মারার ঘটনা হয়তো ঘটত না।

এদিকে মামলার তদন্তে গুরুত্বপূর্ণ অগ্রগতি হয়েছে বলে দাবি করেছে তদন্ত সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। এ ঘটনায় শুক্রবার অধ্যক্ষের ঘনিষ্ঠ সহযোগী নুরুদ্দিন ও কাউন্সিলর মাকসুদ আলমকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ফেনী জেলা পিবিআইর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মনিরুজ্জামান বলেন, এখন এই মামলায় ১০ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মামলায় যথেষ্ট অগ্রগতি হয়েছে। আশা করছি শিগগিরই এ মামলার রহস্য উদ্ঘাটন করা সম্ভব হবে।

প্রসঙ্গত, অগ্নিদগ্ধ শিক্ষার্থী এবং তার পরিবারের অভিযোগ, ৬ আগস্ট সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসায় আলিম পরীক্ষা দিতে যায় ওই শিক্ষার্থী। দুর্বৃত্তরা কৌশলে তাকে ছাদে ডেকে নিয়ে গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। এর আগে ২৭ মার্চ মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ্দৌলার বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে মামলা করেন ওই ছাত্রীর মা।

মামলা প্রত্যাহারে রাজি না হওয়ায় তার গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয় দুর্বৃত্তরা। ওইদিনই গুরুতর আহতাবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। বুধবার রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাফি মারা যান।