তালাকের ভয়ে প্রেমিকসহ ৫ জনকে ধর্ষক বানাল গৃহবধূ!

নাটোরের বড়াইগ্রামে তালাকের ভয়ে প্রেমিকসহ বাধাদানকারী ৫ জনকে আসামি করে থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন এক গৃহবধূ (২৪)। এদিকে গৃহবধূর দায়েরকৃত মামলায় শনিবার (১৩ এপ্রিল) ২ জনকে আটক করে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে পুলিশ।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পরকীয়া প্রেমের টানে ওই গৃহবধূ বাড়ীর অদূরে আমবাগানে প্রেমিকের সাথে অনৈতিক কাজ করতে গেলে স্থানীয় কয়েকজন তাদের দুই জনকে আটক করে। এ ঘটনা জানাজানি হলে স্বামী তাকে তালাক দিবে এই ভয়ে ওই গৃহবধূ প্রেমিকসহ বাধাদানকারী ৫ জনকে আসামি করে থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করে। পুলিশ রাতে অভিযুক্ত উপজেলার ভবানীপুর আটঘরি গ্রামের জসিমউদ্দিন সেখের ছেলে রাজু আহমেদ (২০) ও প্রেমিক একই গ্রামের মইনউদ্দিন ফকিরের ছেলে এবং স্থানীয় ইটভাটার শ্রমিক চান মিয়া ফকির (২৮) কে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে নাটোর জেল হাজতে প্রেরণ করে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পরিদর্শক (তদন্ত) মো. সুমন আলী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, মামলার অপর তিন আসামিকে আটকের চেষ্টা চালানো হচ্ছে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য হাফিজুর রহমান হাফিজ জানান, গত বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে আটঘরি জেলার পাশে আমবাগানে ২ সন্তানের জননী ওই গৃহবধূকে আপত্তিকর অবস্থায় আটক করে রাজুসহ ৩/৪ জন যুবক। তারা ওই গৃহবধূকে বাড়িতে পৌঁছে দিলেও প্রেমিক চান মিয়াকে তার জিম্মায় দিয়ে এর বিচার চায়। অথচ তার পরের দিন ওই গৃহবধূ প্রেমিক চান মিয়ার নাম প্রকাশ না করে রাজুসহ ৩ জনের নামে ওয়ালিয়া পুলিশ ফাঁড়িতে গণধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করেন। পরবর্তীতে ওই গৃহবধূ প্রেমিক চান মিয়া ও রাজুসহ ৫ জনকে আসামি করে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করে।

থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. সুমন আলী আরও জানান, ওই গৃহবধূর মেডিকেল পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। তবে আপাতত এই বিষয়ে আর কোন তথ্য দেয়া যাচ্ছে না বলে তিনি সর্বশেষ জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here