অর্ধদিবসের ছুটি না পেয়ে ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয় ভাঙচুর

মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার পাঁচ্চর উচ্চ বিদ্যালয়ে অর্ধদিবস ছুটি দাবি করায় শিক্ষার্থীদের মারধর করেছেন প্রধান শিক্ষক। এতে বিক্ষুব্ধ হয়ে বিদ্যালয়ে ভাঙচুর চালিয়েছে ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা। বুধবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় বিদ্যালয়ের দুটি সিসি ক্যামেরাসহ জানালার গ্লাস ভেঙে ফেলে শিক্ষার্থীরা। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। সংঘর্ষ এড়াতে বৃহস্পতিবার সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ২৬ মার্চ মঙ্গলবার স্বাধীনতা দিবস উদযাপন করে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। সে কারণে বুধবার দুপুর ১টার দিকে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা প্রধান শিক্ষকের কাছে অর্ধদিবসের ছুটির দাবি জানায়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে প্রধান শিক্ষক দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী শাহজালাল, স্বাধীন, কৌশিক, মাহবুব, আমিনুল, লিয়াকত ও ইমরানসহ কয়েকজনকে বকাঝকা ও মারধর করেন। বিষয়টি নিয়ে বিক্ষুব্ধ হয় শিক্ষার্থী। সেই সঙ্গে প্রধান শিক্ষকের পদত্যাগ দাবি করে স্লোগান দেয় তারা।

এ সময় বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয় ভবনের নিচতলার নোটিশ বোর্ডসহ আসবাবপত্র ভাঙচুর করে। তখন শিক্ষার্থীদের গেটের বাইরে বের করে দেন শিক্ষকরা। গেটের বাইরে গিয়ে বিদ্যালয়ের সামনের দুটি সিসি ক্যামেরা ভেঙে ফেলে তারা। পরে শিবচর-পাঁচ্চর আঞ্চলিক সড়কের ওপর টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধ দেয় শিক্ষার্থীরা। খবর পেয়ে শিবচর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের ধাওয়া দিয়ে সড়ক থেকে সরিয়ে দেয়।

এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. শাজাহান সিরাজী বলেন, বুধবার দুপুরে নবম ও দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা টিফিনের পর ছুটি চায়। কিন্তু আমি তাদের ছুটি দিতে অস্বীকার করি। এতে ক্ষিপ্ত হয় শিক্ষর্থীরা। সেই সঙ্গে আমার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অশ্লীল ভাষায় স্লোগান দেয়। এ কারণে কয়েকজন শিক্ষার্থীকে ডেকে শাসন করি। এতে শিক্ষার্থীরা আরও ক্ষিপ্ত হয়। পরে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বহিরাগতরা যোগ দেয়। ধীরে-ধীরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বাইরে চলে যায়। ঘটনা বাড়তে থাকায় শিবচর থানায় খবর দেয়া হয়। সেই সঙ্গে বৃহস্পতিবার বিদ্যালয়ে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়।

পাঁচ্চর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন হাওলাদার বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে বৃহস্পতিবার বিদ্যালয়ে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। শনিবার সকালে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সঙ্গে বসে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

শিবচর থানা পুলিশের ওসি মো. জাকির হোসেন মোল্লা বলেণ, বুধবার দুপুরে পাঁচ্চর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অফিস কক্ষ ভাঙচুর করে। খবর পেয়ে দ্রুত পুলিশ পাঠানো হয়। সেখানে সড়ক বন্ধ করে বিক্ষোভ করেছিল শিক্ষার্থীরা। পরে তাদের সড়ক থেকে সরিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা হয়।