রাস্তায় ময়লা ফেলার বিষয়ে অবগত ছিলেন না মেয়র আতিকুল

ময়লা পরিষ্কার করার আগে রাস্তায় ময়লা ফেলার বিষয়ে অবগত ছিলেন না বলে বিবৃতি দিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম।

রবিবার (১৭ মার্চ) দুপুরে তেজগাঁওয়ের সাত রাস্তা সংলগ্ন মেয়র আনিসুল হক সড়কে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে ‘বিশেষ পরিচ্ছন্নতা অভিযান ও দেয়ালচিত্র’ কর্মসূচি উদ্বোধন করেন মেয়র। কিন্তু তিনি আসার আগেই সাত রাস্তা ও ওই এলাকার আশপাশে প্রতিটি সড়ক ও অলিগলি পরিষ্কার করা হয়। সড়কে দুর্গন্ধ দূর করতে ব্লিচিং পাউডারও ছিটানো হয়। ডিএনসিসি কর্মীদের পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের কর্মীরাও এ কাজে অংশ নেন।

ওইদিন বেলা ১১টার দিকে মেয়র আনিসুল হক সড়কে গিয়ে দেখা যায় ডিএনসিসি’র বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের একটি ভ্যানগাড়িতে করে ছেঁড়া পোস্টার ও কাগজপত্র সংগ্রহ করে ফের তা পরিষ্কার সড়কটিতে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে ফেলা হচ্ছে। দু’জন পরিচ্ছন্নতাকর্মী ময়লা কাগজ টুকরো-টুকরো করে সড়কে ফেলে যাচ্ছেন। হ্যান্ডমাইক হাতে মেয়র আনিসুল হকের ‘লাভ ঢাকা’ কর্মসূচির একজন কর্মীকে এ সময় তাদের (পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের) দিকনির্দেশনা দিতে দেখা যায়।

এসময় সেখানে থাকা এক পরিচ্ছন্নতাকর্মী বলেন, মেয়র আতিকুল ইসলাম পরিচ্ছন্ন কাজ উদ্বোধন করতে আসবেন। কিন্তু এর আগেই পুরো রাস্তা পরিষ্কার করা হয়। উদ্বোধনের আগে দেখা গেলো সড়কে কোনও ময়লা নেই। তাই কিছু ময়লা সংগ্রহ করে মেয়র আনিসুল হক সড়কে ফেলে রাখার জন্য স্যারেরা বলেছেন।

তিনি বলেন, আমরা শুধু নির্দেশ বাস্তবায়ন করছি।

পরে বেলা ১২টার দিকে সেখানে আসেন মেয়র আতিকুল ইসলাম। সেসময় ঝাড়ু হাতে একদল স্বেচ্ছাসেবকসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী ও পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের নিয়ে সড়কটিতে পরিষ্কার অভিযানে নামেন তিনি।

এ নিয়ে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হলে শুরু হয় নানা আলোচনা-সমালোচনা।

এর পরিপ্রেক্ষিতে রবিবার (১৭ মার্চ) রাতে মেয়রের পক্ষে ডিএনসিসির জনসংযোগ কর্মকর্তা এ এস এম মামুনের পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ময়লা পরিষ্কার করার আগে ময়লা ফেলার ঘটনাটি অত্যন্ত দুঃখজনক। বিষয়টি সম্পর্কে মেয়র কিংবা ডিএনসিসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা অবগত ছিলেন না। কীভাবে এ ধরনের একটি দুঃখজনক ঘটনা ঘটলো এবং কারা এর সঙ্গে জড়িত তা তদন্ত করে তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিবৃতিতে সুস্থ, সচল, গতিময় ও আধুনিক ঢাকা বিনির্মাণে ডিএনসিসির প্রতিটি রাস্তা, গলি, দেওয়াল ও ড্রেন পরিষ্কার করার অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করে ‘সবাই মিলে সবার ঢাকা’ বিনির্মাণে গণমাধ্যমের সহযোগিতা কামনা করেন মেয়র আতিকুল।

এসব বিষয়ে একটি সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার লক্ষ্যে ডিএনসিসি কাজ করছে জানিয়ে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আজকের পরিচ্ছন্নতা অভিযান ও দেয়ালচিত্র তারই সূচনা মাত্র। এ পরিচ্ছন্নতা অভিযান ও দেয়ালচিত্রে শিক্ষার্থী, অটিস্টিক শিশু, শ্রমিক, ব্যবসায়ী, রাজনৈতিক কর্মীসহ সর্বস্তরের শ্রেণি-পেশার মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ ছিল।