অভিনন্দনকে ঘিরে ওয়াগা সীমান্তে ভারতীয়দের উল্লাস

পাকিস্তান আটক ভারতীয় পাইলট উইং কমান্ডার অভিনন্দন আজ সন্ধ্যায় নিজ দেশে ফিরছেন। সীমান্তে তাকে স্বাগত জানাতে রীতিমত আয়োজন চলছে। ঢোল-বাদ্য নিয়ে নেচে গেয়ে ওয়াগা সীমান্তে উল্লাস করছেন ভারতীয়রা। এদিকে ছেলেকে গ্রহণ করতে ওয়াগা সীমান্তে অপেক্ষা করছেন তার বাবা-মা।

বৃহস্পতিবার সকালেই দিল্লি পৌঁছান অভিনন্দনের বাবা ভারতের বিমানবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত এয়ার মার্শাল এস বর্তমান এবং মা শোভা বর্তমান । সেখান থেকে দুপুরে ওয়াগা সীমান্তে পৌছান তারা।

অভিনন্দনকে কিছুক্ষণের মধ্যে ওয়াগা সীমান্ত দিয়ে ভারতের কাছে হস্তান্তর করা হবে। অমৃতসর থেকে প্রায় ৩০ কিলোমিটার দূরে আট্টারিতে তাকে স্বাগত জানাতে আজ ভোর ৬ টা থেকেই ভিড় জমিয়েছেন সাধারণ মানুষ।

বন্ধুদের সঙ্গে আট্টারিতে এসেছেন অমৃতসরের বাসিন্দা জিতেন্দর। তিনি বলেন, আমরা এখানে এসেছি আমাদের দেশের নায়ককে ঘরে স্বাগত জানাতে। আমরা আমাদের এই নায়ককে স্বাগত জানাই। তিনি বিমানবাহিনীর যুদ্ধে প্রভূত সাহস দেখিয়েছিলেন এবং পাকিস্তানিদের হাতে ধরা পড়ার পরেও একটুও বিচলিত হননি।

ছেলে মুক্তি পাবে এই সংবাদে বৃহস্পতিবারই বাবা-মা চেন্নাই থেকে দিল্লি রওনা হন। বিমানে যাত্রীরা এদিন উঠে দাঁড়িয়ে হাততালি শুভেচ্ছা জানান অভিনন্দনের বাবা-মাকে। সঙ্গে ছিল শুভেচ্ছা বার্তাও। এতে স্বাভাবিকভাবেই খুশি এস বর্তমান ও শোভা বর্তমানও। তাঁদের বিমানটি রাত ১টা নাগাদ দিল্লি বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

বুধবার এক বার্তায় তিনি বলেন, ‌’অভি জীবিত রয়েছে, আহত হয়নি, মনও চাঙ্গা রয়েছে! কী দুর্দান্ত সাহস নিয়ে কথা বলছনে একবার দেখুন… সত্যিকারের সৈনিক … আমরা ওর জন্য গর্বিত।’

এদিকে গত বুধবার থেকে ৩৫ বছর বয়সী এই পাইলটকে পাকিস্তানে বন্দি করে রাখা হয়েছিল। তার মিগ-২১বাইসন যোদ্ধা জেট বিমান জম্মু ও কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণ রেখার কাছে পাকিস্তানের বিমান বাহিনীর জেটে আক্রমণ করেছিল।এরপর তাকে আটক করে পাকিস্তানের সামরিক বাহিনী।বহু নাটকীয়তার পর বৃহস্পতিবার পাকিস্তানের পার্লামেন্টে দেয়া ভাষণে দেশটির প্রধামন্ত্রী ইমরান খান অভিনন্দনকে ফেরত দেয়ার ঘোষণা দেন। এতে খুশির ফোয়ারা বইছে গোটা ভারত জুড়ে। তাকে ফেরত আনতে ভারতীয় বিমানবাহিনী বিমান পাঠাতে চেয়েছিল। কিন্তু সেই প্রস্তাব নাকচ করে দিয়েছে পাকিস্তান।পাকিস্তানের গণমাধ্যম ডনের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভারতের প্রস্তাব খারিজ করে পাকিস্তান সাফ জানিয়ে দিয়েছে যে, ওয়াগা সীমান্ত দিয়ে সড়ক পথে ফেরানো হবে অভিনন্দনকে।

উইং কমান্ডার অভিনন্দনকে ভারতে ফিরিয়ে আনার রাস্তা ছিল দুটি। তার মধ্যে একটি ওয়াগা আর অন্যটি আকাশপথ। ভারত চায়নি ওয়াগা দিয়ে ফিরুক অভিনন্দন। ভিড় এবং সংবাদ মাধ্যমকে এড়িয়ে আকাশপথে তাঁকে ফেরাতে চেয়েছিল ভারত। সেই প্রস্তাবে রাজি হয়নি পাকিস্তান।