অগ্নিকাণ্ডে আহতদের চিকিৎসায় ২০ লক্ষ টাকা দিলেন প্রতিমন্ত্রী এনামুর

রাজধানীর চকবাজারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় আহতদের দেখতে ঢাকা মেডিকেলের বার্ণ ইউনিট পরিদর্শন করেছেন ত্রাণ ও দুযোগ ব্যবস্থাপনা প্রতিমন্ত্রী মোঃ এনামুর রহমান। তাক্ষনিকভাবে তিনি আহতদের চিকিৎসার জন্য ২০ লক্ষ টাকা প্রদান করেন।

এ সময় মন্ত্রনালয়ের পক্ষ থেকে হাতপাতাল কতৃপক্ষের সাথে সার্বক্ষনিক সমন্বয় করার জন্য ইফতেখার উদ্দিন নামের একজন পরিচালককেও দায়িত্ব দেন মন্ত্রী।

এরপরে ঢাকা মেডিকেল কলেজের প্রিন্সিপাল এর রুমে প্রতিমন্ত্রী তার মন্ত্রণালয়ের সচিব শাহ কামাল, বিভাগীয় কমিশনার কে এম আলী আজম, জেলা প্রশাসক আবু সালেহ মোহাম্মাদ ফেরদোউস খান এবং ঢাকা মেডিকেল কলেজের প্রিন্সিপাল প্রফেসর ডাঃ খান আবুল কালাম আজাদ সহ ক্ষতিগ্রস্তদের সর্বোত্তম সেবা প্রদানের লক্ষে একটি সমন্বয় বৈঠক করেন।

রাজধানীর চকবাজার এলাকার নন্দকুমার দত্ত সড়কের চুহাট্টা শাহী মসজিদের পেছনের একটি ভবনে বুধবার রাত ১০টা ১০ মিনিটে আগুন লাগে। রাত সাড়ে ৩টার দিকে আগুনের ভয়াবহতা কিছুটা কমলেও আবারও বেড়ে যায়। ফায়ার সার্ভিসের ৩৭টি ইউনিট একযোগে কাজ করে বুধবার দিবাগত রাত সোয়া ৩টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়। এ ঘটনায় অন্তত ৭০ জন নিহত হন।

পুরান ঢাকার চকবাজারে ভবনে অগ্নিকাণ্ডে দগ্ধদের মধ্যে ৯ জনকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের অবস্থাও আশঙ্কাজনক।

এই ৯ জনের মধ্যে আটজনকে পোস্ট অপারেটিভ ওয়ার্ডে এবং একজনকে আইসিইউতে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের সবার শ্বাসনালী পুড়ে গেছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঢামেক বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক ইউনিটের প্রধান সমন্বয়কারী সামন্ত লাল সেন।

আইসিইউতে ভর্তি থাকা সোহাগের শরীরের ৬০ শতাংশ পুড়ে গেছে। আর পোস্ট অপারেটিভে ভর্তি আটজনের মধ্যে রেজাউল করিমের শরীরের ৫৭ শতাংশ পুড়ে গেছে। জাকির হোসেনের ৩৮ শতাংশ, মুজাফফর আহমদের ৩০ শতাংশ, আনোয়ার হোসেনের ২৮ শতাংশ, হেলাল উদ্দিনের ১৬ শতাংশ, সেলিমের ১৪ শতাংশ, মাহমুদের ১৩ শতাংশ এবং সালাউদ্দিনের ১০ শতাংশ পুড়ে গেছে।

বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক ইউনিটের প্রধান সমন্বয়কারী সামন্ত লাল সেন জানান, ভর্তি ৯ জনের মধ্যে কারও অবস্থাই ভালো নয়। প্রায় সবারই শ্বাসনালী পুড়ে গেছে। বার্ন ইউনিটে ১৮ দগ্ধ রোগী চিকিৎসা নিতে এসেছিলেন বলেও জানান সামন্ত লাল সেন।