শরণার্থীদের সংখ্যা বেড়েই চলেছে রুমা সীমান্তে

বান্দরবানের রুমা উপজেলার প্রাংশা ইউনিয়নের জিরো লাইনে বেড়েই চলেছে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা শরণার্থীর সংখ্যা। প্রথম দিকে ৩৫টি পরিবারের ১২৪জন শরণার্থী সীমান্তে অবস্থান নিলেও বর্তমানে তা দুই শতাধিক ছাড়িয়ে গেছে বলে জানা গেছে। মিয়ানমারের চীন রাজ্যে সেনাবাহিনীর সাথে বিচ্ছিন্নতাবাদী আরাকান আর্মির সাথে চলা ব্যাপক সংঘর্ষ থেকে বাচঁতে এসব শরণার্থী সীমান্তের জিরো লাইনে অবস্থান নিচ্ছে। তারা সেখানে তাবু ঠাঙ্গিয়ে বসবাস শুরু করেছে।

তবে কেউ কেউ বাংলাদেশ সীমান্তে প্রবেশ করে বিভিন্ন পাড়ায় আশ্রয় নিয়েছে বলে জানান স্থানীয়রা। এদিকে বিজিবির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে মিয়ানমারের সীমান্তে অবস্থানরত শরণার্থীরা এখনো বাংলাদেশে প্রবেশ করেনি। সীমান্তের ২ কিলোমিটার কাছের এলাকাতে তাদের বসবাস। সেখানে মিয়ানমার সেনা বাহিনীর সদস্যরা হেলিকপ্টারে বোমা নিক্ষেপ করছে। তাই তারা প্রাণে বাচতে জিরো লাইনের নিরাপদ স্থানে অবস্থান করছে। পরিস্থিতি শান্ত হলে পুন:রায় তারা তাদের এলাকায় চলে যাবে।

এ বিষয়ে বিজিরি বান্দরবান সেক্টর কমান্ডার লে: কর্ণেল জহিরুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, রুমা উপজেলার দোপানী ছড়া বিওপি ও বলিবাজার এলাকার নেম্প্রু পাড়া বিওপির মধ্যবর্তী স্থানের ১৩ কিলোমিটার দুরে মিয়ানমারের ৩৬টি পরিবারের প্রায় ১৩৬ জন বাসিন্দা জিরো লাইনে অবস্থান করছে। সেখানে আমাদের পেট্রোল টিম রয়েছে। তারা যেন বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করতে না পারে সেদিকে সজাগ দৃষ্টি রয়েছে।

 

সোহেল কান্তি নাথ, বান্দরবান প্রতিনিধি