প্রশংসনীয় অবদানের জন্য পদক পেলেন পুলিশের ৩৪৯ সদস্য

সাহসিকতা ও বীরত্বপূর্ণ কাজের স্বীকৃতি, গুরুত্বপূর্ণ মামলার রহস্য উদঘাটন, অপরাধ নিয়ন্ত্রণ, দক্ষতা, কর্তব্যনিষ্ঠা এবং সততা ও শৃঙ্খলামূলক আচরণের মাধ্যমে প্রশংসনীয় অবদানের জন্য পুলিশের ৩৪৯ সদস্য পদক পেয়েছেন। মঙ্গলবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।

প্রকাশিত তালিকা অনুযায়ী, বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম) পেয়েছেন ৪০ জন, রাষ্ট্রপতির পুলিশ পদক (পিপিএম) ৬২ জন। গুরুত্বপূর্ণ মামলার রহস্য উদঘাটন, অপরাধ নিয়ন্ত্রণ, দক্ষতা, সততা, কর্মনিষ্ঠার জন্য বাংলাদেশ পুলিশ (বিপিএম) সেবা পদক পেয়েছেন ১০৪ জন এবং ১৩৪ জন পেয়েছেন রাষ্ট্রপতির পুলিশ পদক (পিপিএম) সেবা পদক।

সোমবার (৪ ফেব্রুয়ারি ) রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সে জাতীয় পুলিশ সপ্তাহ উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এসময় তিনি পুলিশ কর্মকর্তাদের হাতে এই পদক তুলে দিয়েছেন।

পুলিশের চাকরিতে এই পদক খুবই সম্মানজনক হিসেবে বিবেচিত। কর্মকর্তারা এর জন্য আর্থিক সুবিধাও পান এবং নামের শেষে এই পদক উপাধি হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন।

শীর্ষ কর্মকর্তাদের মধ্যে সাহসিকতা পদক পাচ্ছেন র‍্যাব মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ, ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া, কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম, পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের অতিরিক্ত আইজি মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম, পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের ডিআইজি (প্রশাসন) হাবিবুর রহমান, ডিআইজি মো. আনোয়ার হোসেন।

এছাড়া অভিযান পরিচালনাকালে সন্ত্রাসীদের দ্বারা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করায় ডিবির ইন্সপেক্টর জালাল উদ্দিনকে এবং ২০১৫ সালে জামায়াত-বিএনপির পেট্রলবোমায় ঢাকার মৎস্য ভবন মোড়ে আহত হয়ে মারা যাওয়া ডিএমপির কনস্টেবল শামীম মিয়াকে বিপিএম (মরণোত্তর) দেয়া হচ্ছে।

পদক পেলেন যারা