শুক্রবার একুশে গ্রন্থমেলা উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

বছর ‍ঘুরে আবার আসছে ভাষার মাস ফেব্রুয়ারি। আগামী ১ ফেব্রুয়ারি অমর একুশে গ্রন্থমেলা শুরু হচ্ছে। ঢাকার বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণ আর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে চলছে অমর একুশে গ্রন্থমেলার শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি। আয়োজকরা জানাচ্ছেন, বইমেলা এবার পরিসরে বেড়েছে। সেইসঙ্গে বেড়েছে অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা। শুক্রবার বিকাল তিনটায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি হিসেবে বাংলা একাডেমিতে এই মেলা উদ্বোধন করবেন। মেলা উদ্বোধনের পর প্রধানমন্ত্রী মেলার বিভিন্ন স্টল পরিদর্শন করবেন।

বাংলা একাডেমি আয়োজিত এ মেলা চলবে ফেব্রুয়ারি মাস ব্যাপী। এবারের মেলার মূল থিম নির্ধারণ করা হয়েছে ‘বিজয়: ১৯৫২ থেকে ১৯৭১, নবপর্যায়’। বৃহস্পতিবার (৩১ জানুয়ারি) সকালে বাংলা একাডেমির আবদুল করিম সাহিত্য বিশারদ মিলনায়তনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ সব তথ্য জানানো হয়।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন বাংলা একাডেমির সভাপতি জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। বিশেষ অতিথি থাকবেন ভারতের কবি শঙ্খ ঘোষ, মিশরের লেখক ও গবেষক মোহসেন আল আরেশি। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখবেন সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব ড. আবু হেনা মোস্তফা কামাল। স্বাগত বক্তব্য রাখবেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক কবি হাবীবুল্লাহ সিরাজী।

এতে বক্তব্য রাখেন একাডেমির মহাপরিচালক হাবীবুল্লাহ সিরাজী, সচিব আবদুল মান্নান ইলিয়াস, মেলার সহযোগী প্রতিষ্ঠান নিরাপদ মিডিয়ার চেয়ারম্যান ইলিয়াস কাঞ্চন প্রমুখ। মেলার সার্বিক বিষয় নিয়ে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন একাডেমির পরিচালক ও মেলা কমিটির সদস্য সচিব ড. জালাল আহমেদ।

এবারের মেলা বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণ ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের ৩ লাখ বর্গফুট এলাকায় অনুষ্ঠিত হবে। মোট স্টল থাকছে ৭৭০টি। গত মেলার চেয়ে এবার ৫১টি স্টল বেড়েছে। প্যাভিলিয়ন রয়েছে ২৪টি। এছাড়া লিটন ম্যাগাজিন চত্বরে ১৫৫টি স্টল থাকবে। শিশুদের জন্য স্থাপন করা হয়েছে শিশু চত্বর। ছুটির দিন শুক্রবার ও শনিবার থাকবে শিশুপ্রহর। এতে শিশুরা অভিভাবকদের সাথে মেলা উপভোগ করবে।

মেলা সুষ্ঠু ও নিরাপদভাবে পরিচালনা করার জন্য অন্যান্যবারের মতো র‌্যাব, পুলিশ, গোয়েন্দোসহ বিভিন্ন নিরাপত্তাকর্মীরা প্রহরায় থাকবে। পুরো মেলায় স্থাপিত হয়েছে তিন শতাধিক ক্লোজসার্কিট ক্যামেরা। মেলা থাকবে সম্পূর্ণ পলিথিন ও ধুমপানমুক্ত। মেলায় ২৫ ভাগ কমিশনে বই বিক্রি করা হবে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, মেলা উপলক্ষে প্রতিদিন মূল মঞ্চে শিল্প-সাহিত্য, সংস্কৃতি, রাজনীতি, সমকালীন প্রসঙ্গে সেমিনার, বিশিষ্ট বাঙালি মনীষার জন্মশতবার্র্ষিকী শ্রদ্ধাঞ্জলি এবং তাঁদের কর্মজীবন নিয়ে আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া সন্ধ্যায় থাকবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। শিশু-কিশোরদের অংশ্রগহণে থাকবে বিভিন্ন প্রতিযোগিতা। মেলার বই নিয়ে এবং স্টল সাজ-সজ্জার উপর কয়েকটি পুরস্কার প্রদান করা হবে।