ইস্টার্ন প্লাজা মার্কেটে ১৬ লাখ টাকা জরিমানা, ৬ জনের কারাদণ্ড

ঢাকার ইস্টার্ন প্লাজা মার্কেটে নকল, ক্লোন ও কপি করা আইএমএ নম্বর বসানো মোবাইল সেট জব্দে অভিযান চালিয়েছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ান (র‍্যাব)। অভিযানে মার্কেটের বিভিন্ন দোকানে ১৬ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। সেইসঙ্গে ছয় জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

বুধবার (৩১ জানুয়ারি) বিকেল থেকে হাতিরপুল এলাকায় অবস্থিত ইস্টার্ন প্লাজায় এ অভিযান শুরু হয়। অভিযানে সহযোগিতা করেছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)।

অভিযানে জরিমানা করা দোকানগুলোর মধ্যে রয়েছে তিশা টেলিকম, আল ইসলাম মোবাইল গার্ডেন, আইটেল মোবাইল (জেনারেল ইলেকট্রনিক), কবির টেলিকম, রিফাত এন্টারপ্রাইজ, সামিয়া এন্টারপ্রাইজ, আপন টেলিকম, সাবা ইলেকট্রনিক, এক্সপেরিয়ান্স, এক্সচেঞ্জ হাটসহ আরও বেশ কয়টি দোকান।

অভিযানের নেতৃত্ব দিয়েছেন, র‌্যাব সদর দফতরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম। এ ঘটনায় কারাদণ্ডপ্রাপ্তদের নাম এখনো জানা যায়নি।সারোয়ার আলম বলেন, নকল ও ক্লোন করা মোবাইল সেটের বিরুদ্ধে আমাদের এ অভিযান চলছে।

ইস্টার্ন প্লাজায় অবস্থিত মোবাইলের অন্য দোকানগুলোর মালিক, কর্মচারী, মালিক সমিতির প্রতিনিধিদের উদ্দেশ্যে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বলেন, জরিমানা বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেয়া এসব দোকানে নকল ও ক্লোন করা, হবুহু নকল করে আইএমই নম্বর বসিয়ে মোবাইল সেট বিক্রি করছিল। এসব মোবাইল সরল বিশ্বাসে সাধারণ ক্রেতা কেনার পর খুব অল্প সময়ের মধ্যে নষ্ট হয়ে যায়।

এ ছাড়া নকল ও ক্লোন করা, হবুহু নকল করে আইএমই নম্বর বসানো এসব মোবাইল সেট নিরাপত্তাহীনতার একটি কারণ। এর মাধ্যেমে জঙ্গিবাদসহ যে কোনো ধরনের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড পরিচালিত হতে পারে। যে কারণে আমাদের আজকের অভিযান। এসব বিষয়ে আপনাদের সতর্ক থাকা উচিত বলে জানান তিনি।

অভিযানে আরও উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) স্প্রেকটা বিভাগের পরিচালক আমিনুল হক, সিনিয়র সহকারি পরিচালক আশরাফুল আলম, উপ-সহকারী পরিচালক শাহাদত হোসেন, কামাল সিদ্দিক, ফরিদ হোসেনসহ র‍্যাবের কর্মকর্তারা।