রাহাত ফাতেহ আলি খানের বিরুদ্ধে মার্কিন ডলার পাচারের অভিযোগ

বিদেশে মার্কিন ডলার পাচারের অভিযোগ উঠেছে পাকিস্তানের গায়ক রাহাত ফাতেহ আলি খানের বিরুদ্ধে। তাই তাঁর জবাব চেয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশও দিয়েছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট।

পাকিস্তানের গায়ক রাহাত ফাতেহ আলি খান দীর্ঘদিন ধরেই ভারতে জনপ্রিয়। ভারতের বিভিন্ন জায়গায় তিনি অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। এবার তার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে, এই সমস্ত অনুষ্ঠান থেকে পাওয়া অর্থই তিনি বিদেশে পাচার করেছেন। জানা গেছে, যে ঘটনায় তাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে, সেটি ২০১১ সালের। সেই সময় দিল্লি বিমানবন্দরে তাঁকে ও তাঁর ম্যানেজার মারুফকে আটক করে ডিরেক্টর অফ রেভিনিউ ইন্টালিজেন্স। তখন তাঁর কাছ থেকে প্রায় ১.২৪ লক্ষ ডলার মেলে, যার কোনও হিসেব ছিল না।

আর তখনই তাঁকে এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হয়। কোথা থেকে এল, তা জানতে চাওয়া হয়। সূত্রের খবর, এর কোনও সদুত্তর তিনি দিতে পারেননি। তবে তাঁর কোনও দোষ নেই বলেই তিনি দাবি করেছিলেন। তবে জরিমানা দিয়ে সেই সময় তিনি ছাড়া পান। এরপর ২০১৪ সালে ফেমা আইনে ওই পাক-গায়কের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করে ইডি। তদন্তে ইডি জানতে পারে, অবৈধ ভাবে ২.৪২ কোটি টাকা জোগাড় করেছে। এর অর্থ তিনি প্রায় ২ লক্ষ ২৫ হাজার মার্কিন ডলার বিদেশে পাচার করেছিলেন।

এ নিয়ে ওই গায়কের জবাব চেয়েছে ইডি। তাঁকে ৪৫ দিনের মধ্যে জবাব দিতে বলা হয়েছে। ইডি সূত্রে খবর, সঠিক সময় জবাব না এলে কিংবা সন্তোষজনক জবাব দিতে না পারলে ওই পাক গায়কের বিরুদ্ধে আইনত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। দোষী প্রমাণিত হলে তাঁকে ৩০০ শতাংশ জরিমানা হতে পারে।

আর জরিমানা না দিলে তাঁর বিরুদ্ধে লুক আউট নোটিশ জারি করা হতে পারে। ফলে তিনি ভারতে আর কোনও অনুষ্ঠান করতে পারবেন না।