বাণিজ্য মেলায় ২৩ টি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ভ্যাট আইনে মামলা

ঢাকা পশ্চিম কর কর্তৃপক্ষ ভ্যাট ফাঁকির অভিযোগে বাণিজ্য মেলায় অংশ নেয়া ২৩ টি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ভ্যাট আইনে মামলা দায়ের করেছে। কতিপয় প্রতিষ্ঠানকে বিধিবিধান মেনে ভ্যাট প্রদানে পরামর্শ প্রদান করা হয়েছে। যারা ভ্যাট ফাঁকির সাথে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে ভ্যাট আইনে মামলা দেয়া হয়েছে।

সোমবার ঢাকা পশ্চিম ভ্যাট কমিশনারের একটি বিশেষ নিবারক দল মেলা প্রাঙ্গনে পরিদর্শনে গিয়ে বেশ কিছু স্টলে অনিয়ম দেখতে পায়। এতে দেখা যায়, কোন কোন প্রতিষ্ঠান ক্রেতাদের থেকে ভ্যাট আদায় করলেও তা সরকারি কোষাগারে জমা দিচ্ছে না। কেউ আবার ভ্যাট চালান ব্যতিরেকে পণ্য বিক্রি করছে।

প্রতিষ্ঠানগুলো হলো, কিয়াম মেটাল ইন্ডা লি, দিল্লী এ্যালুমিনিয়াম, নাভানা ফার্নিচার, নাবিস্কো বিস্কুট এন্ড ব্রেড লি:, হাজীর বিরিয়ানি, স্মার্ট জোন, রয়েলেক্স মেটাল ইন্ডাঃ, এফজি জুয়েলারি, দেশ কালেকশন, মেসার্স শাহজাহান স্টোর, দি পার্ল হাউজ, জিসান কালেকশন, কামাল এন্টারপ্রাইজ, নাছির আবেদিন টেডার্স, আশরাফ এন্ড বাদার্স, নিদা ট্রেডিং, গৃহিনী বিরিয়ানি এন্ড কাবাব, হাশেম ফুডস লি, মিয়াকো , লাভেলো আইসক্রিম, এস , কে , বি স্টেইনলেস স্টিল মিলস লি, হাজির বিরিয়ানি এন্ড শাহী কস্তুরি কাবাব, বেঙ্গল মেলামাইন লি, ব্রাদার্স ফার্নিচার লি: ও ফ্যাশন জুয়েলারী, ভ্যাট ফাঁকির পরিমাণ নির্ণয় করা হচ্ছে।

এসব মামলা আইন অনুযায়ী ভ্যাট কর্তৃপক্ষ নিষ্পত্তি করবেন। দোষী প্রমাণিত হলে ফাঁকিকৃত ভ্যাট আদায় ও জরিমানা হতে পারে।

উল্লেখ্য, এবারের বাণিজ্য মেলাতে ভ্যাটযোগ্য ৫১৮টি প্যাভিলিয়ন ও স্টল রয়েছে।এবছর মেলা থেকে ৬ কোটি ভ্যাট আহরণ হবে মর্মে ধারণা করা হচ্ছে। গত বছর এই খাতে আহরণ হয়েছিল ৫.২১ কোটি টাকা। নিবারক দলে নেতৃত্ব দেন পশ্চিম কমিশনারের উপকমিশনার ফেরদৌসী মাহবুব ও সহকারী কমিশনার জুয়েলা খানম।