জয়ের পরদিনই নিজের করণীয় তুলে ধরেছেন মাশরাফি

অনেক জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে শেষ হল একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। চতুর্থবারের মতো প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন জননেত্রি শেখ হাসিনা। তারই নেতৃত্বে টানা তৃতীয়বারের মতো বিশাল জয় পেল মহাজোট। নড়াইল-২ আসনে বিপুল পরিমাণ ভোটের ব্যাবধানে জয় পেয়েছেন ক্রিকেট তারকা মাশরাফি বিন মর্তুজা। আর জয়ের পরদিনই সাংবাদিকদের সামনে নিজের করণীয় তুলে ধরেছেন সফল এই অধিনায়ক।

বিজয়ের প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেন, নড়াইল হবে দেশের শ্রেষ্ঠতম বাসযোগ্য স্থান। এজন্য তার প্রথম পদক্ষেপ হবে অনুন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন। এরপর খেলাধুলার উন্নয়ন, স্বাস্থ্য, কৃষি, শিক্ষা, সন্ত্রাস এবং মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণে ভূমিকা রাখবেন।

সোমবার দুপুর ১টার দিকে শহরের তাহেরা কমিউনিটি সেন্টারে নির্বচনোত্তর এক প্রতিক্রিয়ায় তিনি এ কথা বলেন।

এ সময় সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, নির্বাচনী গণসংযোগের সময় দেখেছি নড়াইলের সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা খুবই অনুন্নত। দায়িত্ব নেয়ার পর এসব যোগাযোগ ব্যবস্থার টেকসই উন্নয়নে কাজ করতে চাই। কাজের মান যাতে ভালো হয় সেদিকেও খেয়াল রাখতে হবে। শুনেছি সড়কে কাজ করার ২/১ বছরের মধ্যে আবারও সেটি চলাচলের অনুপোযোগী হয়ে যায়। সরকার থেকে যে বরাদ্দ আসে সেটিকে সঠিকভাবে জনগণের জন্য কাজে লাগাতে চাই।

স্বাস্থ্য ও শিক্ষার ব্যাপারে গুরুত্ব দিয়ে বলেন, নড়াইলে কোনো মেডিকেল কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয় করা যায় কিনা সে ব্যাপারে সম্ভাব্যতা যাচাই করে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বসে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

এছাড়া কৃষির ব্যাপারে তিনি বলেন, ইতোমধ্যে নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশন থেকে জেলার দরিদ্র কৃষকদের বিনামূল্যে বীজ দেয়া হয়েছে। এ ধারা অব্যাহত থাকবে এবং কৃষকদের বিভিন্ন সমস্যা কিভাবে সমাধান করা হবে।

এ সময় খেলার মাঠের মাশরাফি আর রাজনীতির মাঠের মাশরাফির মধ্যে কোনো পার্থক্য থাকবে কিনা এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, দেশের জন্য যেমন খেলেছি, তেমনি রাজনীতির মাঠে থেকে দেশের সেবা করার চেষ্টা করব। আগামীকাল ১ জানুয়ারি ঢাকায় গিয়ে বিপিএলের দিকে মনোনিবেশ করবেন বলেও জানান এই ক্রিকেট তারকা।

উল্লেখ্য, নড়াইল-২ আসনে মাশরাফি ২ লাখ ৭১ হাজার ২১০ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন। তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী এনপিপির চেয়ারম্যান ফরিদুজ্জামান ফরহাদ ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ৭ হাজার ৮৮৩ ভোট।