ভোট না নিয়েই কেন্দ্রের দরজা বন্ধের অভিযোগ ভোটারদের

নারায়ণগঞ্জ নগরের মরগান গার্লস স্কুল কেন্দ্রের ভোটারদের অভিযোগ বেলা সাড়ে ১১টা থেকে কেন্দ্রের দরজা বন্ধ করে দেয়া হয়। কেন্দ্রের দরজা বন্ধ করে দিয়ে ভোটারদের সরাতে একবার লাঠিপেটা করা হয় বলেও অভিযোগ করেন ঐ কেন্দ্রের ভোটাররা।

নারায়ণগঞ্জের মরগান গার্লস স্কুল কেন্দ্রের দরজা বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বন্ধ করে দেয়া হয় বলে জানান ঐ কেন্দ্রের ভোটারগণ। বেলা দেড়টার দিকে এই অভিযোগে শতাধিক ভোটার ভোট দেওয়ার দাবিতে স্লোগান দেন কেন্দ্রের সামনে। চারজন নারী ভোটকেন্দ্রের ফটকে অবস্থানরত আর্মড পুলিশ সদস্যদের সঙ্গে উচ্চ স্বরে ঝগড়াও করেন ভোট দেয়ার জন্য। তাঁদের অভিযোগ, দুই ঘণ্টা ধরে কেন্দ্রের ফটক বন্ধ করে পুলিশ তাদের আটকে রেখেছে। একবার লাঠিপেটাও করেছে। কেন্দ্রের ভেতরে ঢুকে প্রিসাইডিং কর্মকর্তার সঙ্গে এই বিষয়ে কথা বলতে চাইলে কর্তব্যরত পুলিশ সদস্যরা জানালেন, ভেতরে সবাই খাচ্ছেন। তাই দেরি হচ্ছে।

কিন্তু উত্তেজিত জনগণ তখন বলতে শুরু করেন যে, সরকার কী এমন খাবার দিচ্ছে যে দুই ঘণ্টা ধরে খাচ্ছেন তারা, আর ভোটাররা না খেয়ে ভোট দিতে দাঁড়িয়ে আছে। তাছাড়া তাদের বার বার পুলিশ লাঠি নিয়ে ধাওয়া করছে বলেও জানান তারা। এ অবস্থায় ফটকে অবস্থানরত সদর থানার একজন কর্মকর্তা বলেন, ‘আপনারা জানেন না অবস্থা কী। যা হওয়ার হয়ে গেছে।’

এরপর বেলা দুইটার দিকে নারায়ণগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কামরুল ইসলামের নেতৃত্বে তিনটি গাড়ি সাইরেন বাজাতে বাজাতে এসে লোকজনকে সরিয়ে দেয়। নিজের হাতে লাঠি নিয়ে ভোট দিতে আসা লোকজনকে তাড়াতে দেখা যায় ওসিকে। কথা বলতে চাইলে লাঠি হাতে সরে যেতে ইশারা করেন।