নির্বাচনী প্রচারণার সমাপ্তি, সব প্রস্তুতি শেষ করেছে ইসি

নির্বাচনের সব প্রস্তুতি শেষ করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। আজ শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে ভোটের জন্য প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ও দলের সকল প্রচারণা সমাপ্ত। ৩০ ডিসেম্বর রবিবার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত একটানা ভোট চলবে। ভোটের ৪৮ ঘণ্টা আগে থেকে ভোটের পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টা নির্বাচনী এলাকায় সভা, সমাবেশ, মিছিল ও শোভাযাত্রা বের না করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। শান্তিপূর্ণ ভোটের জন্য সশস্ত্রবাহিনীর সদস্য, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও নির্বাহী এবং বিচারিক হাকিম নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন।

এ ছাড়া ভোট কেন্দ্রের নিরাপত্তার জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা আজ থেকে মাঠে নামবেন। ভোটের পরের দিন পর্যন্ত তারা থাকবেন। নির্বাচন কমিশন রিটার্নিং অফিসারদের সুষ্ঠু-শান্তিপূর্ণ ভোটগ্রহণের প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়েছেন। কমিশনও ঢাকা থেকে সব কিছু মনিটরিং করছে। এ জন্য আইনশৃঙ্খলা মনিটারিং সেল খোলা হয়েছে।

ভোটের প্রস্তুতির বিষয়ে নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী বলেছেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের সব প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। সেই সঙ্গে বিদ্যমান পরিস্থিতিতে রাজনৈতিক উত্তাপ থাকলেও কোনো ধরনের উদ্বেগ নেই বলে মনে করেন তিনি। এ ছাড়া ৩০০ আসনে এক দিনের নির্বাচন পরিচালনা করা বড় ধরনের চ্যালেঞ্জ হলেও তা মোকাবিলায় প্রস্তুত রয়েছে ইসি। তিনি বলেন, নির্বাচনী এলাকায় আইনশৃঙ্খলাবাহিনী ও সশস্ত্রবাহিনী মোতায়েন রয়েছে।

নির্বাচনী এলাকায় পৌঁছে গেছে ব্যালট পেপার, ব্যালট বাক্সসহ নির্বাচনী সামগ্রী। জরুরি প্রয়োজনে পরিবহন কাজের জন্য প্রস্তুত রয়েছে সশস্ত্রবাহিনীর দুটি হেলিকপ্টার। আমরা ভোটের জন্য সম্পূর্ণ প্রস্তুত।

ছয়টি আসনে ইভিএমে ভোট হবে; সেখানে মক ভোটিং চলছে। আরও দুই দিন এ মহড়া অব্যাহত থাকবে। ভোটের ৪৮ ঘণ্টা আগে প্রার্থী ও দলের সব প্রচারণা বন্ধ হয়ে যাবে বলে জানান তিনি। শাহাদাত হোসেন চৌধুরী বলেন, আজ শুক্রবার সকাল ৮টার পর ভোটের প্রচারণা বন্ধ থাকবে। ভোটের জন্য প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ও দলের প্রচারণা শেষ হচ্ছে আজ শুক্রবার সকাল ৮টায়। কাল ২৯ ডিসেম্বর ৪০ হাজারেরও বেশি ভোট কেন্দ্রে পৌঁছে যাবে সব সামগ্রী। আগামী ৩০ ডিসেম্বর ২৯৯ আসনে ভোট হবে। ছয়টি আসনে ইভিএমে ভোট হওয়ায় বাকি ২৯৩ আসনে ব্যালট পেপার ব্যবহার করা হবে। আজ-কালও নির্ধারিত ছয়টি আসনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) মক (অনুশীলনমূলক) ভোটগ্রহণ হবে। সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ছয়টি আসনের সব কেন্দ্রে একযোগে অনুশীলন কার্যক্রম চলবে।

এদিকে ব্যালট বক্সসহ প্রাথমিক নির্বাচনী মালামাল আগেই পৌঁছে দিয়েছে কমিশন। এ ছাড়া গত দুই দিনে অধিকাংশ আসনে ব্যালট পেপারও পাঠিয়েছে ইসি। ইসির কর্মকর্তা জানান, পার্বত্য এলাকার ব্যালট পেপারসহ অধিকাংশ আসনে ব্যালট বিতরণ হয়েছে। ভোট কেন্দ্রে জরুরি প্রয়োজনে ব্যালট পেপার পৌঁছাতে দুটি হেলিকপ্টারও প্রস্তুত রয়েছে। ঢাকা থেকে সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তার প্রতিনিধি ও আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যদের নিরাপত্তার মধ্যে অধিকাংশ এলাকায় ভোটের সামগ্রী পৌঁছানো হয়েছে। আজকের মধ্যে সব আসনের ব্যালট মুদ্রণ সম্পন্ন হবে। এবারের ভোটে ৩৯টি দল ও স্বতন্ত্র মিলিয়ে এখন মাঠে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছের ১ হাজার ৮০০ শর বেশি প্রার্থী। এর মধ্যে স্বতন্ত্র ৯০ জনের বেশি, দলীয় প্রার্থী প্রায় ১৭৪৯ জন।

ছয় আসনে ইভিএম: সংসদ নির্বাচনের জন্য নির্ধারিত ছয়টি আসনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) মক (অনুশীলনমূলক) ভোটগ্রহণ আজ-কালও চলবে। সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ছয়টি আসনের সব কেন্দ্রে একযোগে অনুশীলন কার্যক্রম চলবে। গত ২৬ নভেম্বর নির্বাচনে ইভিএমে ভোটগ্রহণের জন্য ছয়টি আসন চূড়ান্ত করে ইসি।

৪৮ ঘণ্টা মোবাইল ব্যাংকিং বন্ধ: একাদশ সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস (এমএফএস) বা মোবাইল ব্যাংকিং  লেনদেন আজ বিকাল ৫টা থেকে ৪৮ ঘণ্টার জন্য বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। গতকাল বাংলাদেশ ব্যাংকের এক সার্কুলারে বলা হয়, বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা অনুযায়ী দেশের সব মোবাইল ব্যাংকিংয়ের সব ধরনের লেনদেন আজ বিকাল ৫টা থেকে আগামী ৩০ ডিসেম্বর বিকাল ৫টা পর্যন্ত সম্পূর্ণভাবে বন্ধ রাখতে হবে।

চার দিন বন্ধ ব্যাংক শেয়ারবাজার: এদিকে নির্বাচন, সাপ্তাহিক ছুটি ও ব্যাংক হলিডের কারণে আজ থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত টানা চার দিন বন্ধ থাকবে দেশের সব ব্যাংক ও দুই শেয়ারবাজার। এদিকে ছুটির দিনগুলোতে ব্যাংকের এটিএম বুথগুলোতে সার্বক্ষণিক পর্যাপ্ত টাকা সরবরাহের জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। হাসপাতাল প্রস্তুত রাখার নির্দেশনা ইসির : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সহিংসতার শঙ্কায় সব সরকারি ও সামরিক হাসপাতালকে জরুরি সেবাদানের জন্য প্রস্তুত থাকার নির্দেশনা দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। একইসঙ্গে অ্যাম্বুলেন্সগুলো স্ট্যান্ডবাই রাখতেও বলা হয়েছে।