কুড়িগ্রাম- ৩ আসন উলিপুরে লড়াই হবে ত্রিমুখী

কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার ১৩টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা নিয়ে গঠিত ২৭-কুড়িগ্রাম-৩ (উলিপুর) আসনে মহাজোটের ৩, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ২ এবং বামজোটের ২ প্রার্থীসহ ৮জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দিতা করলেও আসনটিতে মূলত লড়াই হবে ত্রিমুখী। এ আসনে মোট ভোটার রয়েছে ৩,০৩,০১৩ জন। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার- ১,৪৭,৭৪২ ও নারী ভোটার-১,৫৫,২৭১ জন।

কুড়িগ্রাম-৩ আসনটি ১৯৯৬ সাল থেকে জাতীয় পার্টির দখলে রয়েছে। ১৯৯১ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বিজয়ী হলেও এ আসনে বিএনপি বিগত দিনে সুবিধা করতে পারেনি। তবে আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মহাজোট থেকে আসনটি উন্মুক্ত রেখে জাতীয় পার্টি, আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টি  (জেপি) প্রতিদ্বন্দিতায় অংশ নেয়ায় এবার ভিন্নচিত্র দেখা যেতে পারে। কুড়িগ্রাম-৩ আসনের সাংসদ একে.এম মাঈদুল ইসলামের মৃত্যুতে শুণ্য হওয়া আসনটিতে উপ-নির্বাচনে জয়ী হওয়া জাতীয় পাটির প্রার্থী শিল্পপতি অধ্যাপক ডা. আক্কাস আলী সরকার এবারও লাঙ্গল প্রতীকে নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন।

আওয়ামী লীগ থেকে নৌকা প্রতীকে আছেন উপ-নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করে সামান্য ভোটের ব্যবধানে হেরে যাওয়া অধ্যাপক এম এ মতিন, জাতীয় পার্টি (জেপি) বাইসাইকেল থেকে রয়েছেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি পদ থেকে সদ্য বহিস্কৃত মতি শিউলীর স্বামী প্রকৌশলী মঞ্জুরুল হক। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে বিএনপি জোট মনোনীত কুড়িগ্রাম জেলা বিএনপির সভাপতি তাসভীর উল ইসলাম ধানের শীষ প্রতীক এবং কৃষক শ্রমিক জনতালীগ মনোনীত হাবিবুর রহমান গামছা প্রতীকে নির্বাচন করছেন।

এছাড়া রয়েছেন বামজোট সিপিবি’র কাস্তে প্রতীক দেলওয়ার হোসেন  ও সমাজতান্ত্রিক দল বাসদ’র সাঈদ আখতার আমীন মই প্রতীক এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ’র গোলাম মোস্তফা মিঞা দুলাল হাত পাখা প্রতীকে নির্বাচন করছেন। ৮জন প্রার্থী নির্বাচনে অংশগ্রহণ করলেও মূলত লড়াই হবে ত্রিমুখী নৌকা, লাঙ্গল ও ধানের শীষের মধ্যে। কুড়িগ্রাম-৩ আসনের পরিসংখ্যান জাতীয় পাটির পক্ষে হলেও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অন্য সময়ের চেয়ে প্রতিদ্বন্দিতাপূর্ণ নির্বাচন হওয়ায় জাতীয় পাটির জন্য আসনটি ধরে রাখা কঠিন চ্যালেঞ্জ হয়ে দাড়িয়েছে। এ আসনটি মহাজোট থেকে ‘উন্মুক্ত’ রাখায় জোটের কয়েকটি দলের প্রার্থীরা নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। এ কারনে মহাজোট সমর্থীত সাধারন ভোটাররা পড়েছেন দ্বিধাদ্বন্দ্বে।

কুড়িগ্রাম-৩ (উলিপুর) আসনটি বরাবর অবহেলিত ও উন্নয়ন বঞ্চিত। সেকারনে প্রার্থীরা নানা প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভোটারদের মন জয় করতে হাট, বাজার,গ্রাম-গঞ্জ, পাড়া-মহল্লায় ছুটে বেড়াচ্ছেন। এখন পর্যন্ত শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচনে ৮জন প্রার্থী সমান তালে প্রচার প্রচারনা চালিয়ে গেলেও এ আসনের সাধারন ভোটার তবকপুর ইউনিয়নের রাসেল মিয়া (৩৮), আব্দুল কুদ্দুস (৪৫), গুনাইগাছ ইউনিয়নের আব্দুস ছাত্তার (৬২), আব্দুস ছালাম (৫৫), আনোয়ারুল ইসলাম (৫৪), পৌরসভার একরামুল (২৫), আব্দুর রহিম (২৪), শাওন আহম্মেদ (২২),সহ অনেকে জানান, আসনটিতে তিন প্রার্থীর মধ্যে লড়াই হবে সমান-সমান। তাদের চাওয়া এলাকার উন্নয়নের জন্য যিনি কাজ করবেন তাকেই জনগন নির্বাচিত করবেন।

আসলাম উদ্দিন আহম্মেদ, উলিপুর (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি