বিশ্বব্যাপী বেড়েছে সাংবাদিক হত্যার ঝুঁকি

গতকাল বুধবার যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক সাংবাদিকদের আন্তর্জাতিক সংস্থা সিপিজের প্রকাশিত এক তথ্যে বলা হয়েছে বিশ্বব্যাপী সাংবাদিকদের হত্যার ঝুঁকি বেড়েছে। ২০১৭ সালের তুলনায় চলতি বছর প্রায় দ্বিগুণ সাংবাদিক হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন।

যুদ্ধ ও সহিংসতা জনিত কারণে হত্যার ঝুঁকি কমলেও কাজ করতে গিয়ে হত্যার ঝুঁকি বেড়েছে সাংবাদিকদের। এই তথ্য জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক সাংবাদিকদের আন্তর্জাতিক সংস্থা দ্য কমিটি টু প্রটেক্ট জার্নালিস্ট (সিপিজে)। সংস্থাটি গতকাল যে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে তাতে বলা হয়েছে, ২০১৭ সালের তুলনায় চলতি বছর প্রায় দ্বিগুণ সাংবাদিক হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন। সিপিজের প্রতিবেদন অনুযায়ী, গত ১ জানুয়ারি থেকে ১৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত ৫৩ জন সাংবাদিক হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন। তাঁদের মধ্যে ৩৪ জন কর্মরত সাংবাদিক হত্যার শিকার হয়েছেন কাজ করতে গিয়ে। তাঁদের পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করা হয়েছে। সিপিজের প্রতিবেদন অনুযায়ী, বিগত তিন বছরের মধ্যে চলতি বছর সবচেয়ে বেশি কর্মরত সাংবাদিককে হত্যা করা হয়েছে। ২০১৭ সালে ৪৭ জন সাংবাদিককে হত্যা করা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করা হয়েছে ১৮ জন কর্মরত সাংবাদিককে। এ বছর সেই সংখ্যা ৩৪জন।

সিপিজের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, আফগানিস্তানে চলতি বছর ১৩ জন সাংবাদিককে হত্যা করা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে শুধু এপ্রিল মাসেই নিহত হয়েছেন ১০ জন সাংবাদিক। চলতি বছর ভারতে নিহত হয়েছেন ৫ জন সাংবাদিক। সিরিয়ায় নিহত হয়েছেন ৯ জন, ইয়েমেনে ৩ জন, ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনে ২ জন করে এবং সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিকে ৩ জন সাংবাদিকে হত্যা করা হয়েছে। এ ছাড়া যুক্তরাষ্ট্র ও মেক্সিকোতে ৪ জন করে সাংবাদিক হত্যা করা হয়েছে। ব্রাজিল ও কলম্বিয়াতে হত্যার শিকার হয়েছেন ২ জন করে ৪ জন। নিকারাগুয়া, সোমালিয়া, স্লোভাকিয়া, লিবিয়া, সৌদি আরব, পাকিস্তান-এই দেশগুলোতে একজন করে সাংবাদিক হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন।

এছাড়াও প্রতিবেদনে খাসোগি হত্যার কথা উল্লেখ করে বলা হয়েছে, সাংবাদিকদের অধিকার এবং নিরাপত্তায় আন্তর্জাতিক নেতৃত্বের অভাবে সংবাদমাধ্যমগুলোর ওপর বিপদ বাড়ছে। সিপেজের এলানা বেইসার বলেন, খাসোগি হত্যাকাণ্ড নিয়ে যেসব রাষ্ট্রপ্রধানেরা কথা বলেছেন, তাঁদের মধ্যে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান অন্যতম। কিন্তু তাঁর দেশে তিন বছরে সবচেয়ে বেশি সাংবাদিক কারাবরণ করেছেন।

উল্লেখ্য, চলতি সপ্তাহে এমন আরেকটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিল ফ্রান্সের প্যারিস ভিত্তিক গণমাধ্যম পর্যবেক্ষণ-বিষয়ক আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডারস (আরএসএফ)। প্যারিস ভিত্তিক এই প্রতিষ্ঠানের দেওয়া সাংবাদিক হত্যার পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ৮০ জন চলতি বছর হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন। তবে তাঁদের মধ্যে গণমাধ্যমকর্মী, ব্লগার ও সিটিজেন জার্নালিস্টও আছেন।