একদলীয় শাসন পুনরাবৃত্তি না ঘটার প্রতিশ্রুতি দিয়ে বিএনপির ইশতেহার

মঙ্গলবার রাজধানীর গুলশানে লেকসোর হোটেলে সকাল সাড়ে ১১ টায় একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনী ইশতেহার পাঠ করা শুরু করেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। নির্বাচনে জয়ী হয়ে ক্ষমতায় এলে একদলীয় শাসন পুনরাবৃত্তি যেন না ঘটে তা নিশ্চিত করা হবে বলে ইশতেহারে উল্লেখ করেছে বিএনপি।

ইশতেহারে মির্জা ফখরুল বলেন, প্রতিহিংসার পরিবর্তে নতুন ধারার রাজনীতি প্রতিষ্ঠা করা হবে। সংবিধান অনুযায়ী ন্যায় পাল নিয়োগ করা হবে। চাকরিতে প্রবেশের ক্ষেত্রে কোনো বয়স সীমা থাকবে না। মত প্রকাশের স্বাধীনতা নিশ্চিত করা হবে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল করা হবে। দেশের উন্নয়নের দায়িত্ব থাকবে স্থানীয় সরকারের হাতে।

আলমগীর ইশতেহারে বলেছেন, সংবিধান সংশোধনের মাধ্যমে প্রজাতন্ত্রের নির্বাহী ক্ষমতার ক্ষেত্রে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমতার ভারসাম্য আনা হবে। বিধান করা হবে একাধারে পরপর দুই মেয়াদের বেশি প্রধানমন্ত্রী থাকবে না। বিরোধীদল থেকে ডেপুটি স্পিকার নিয়োগ দেয়া হবে।রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর চলাচলের সময় যেন সাধারণ মানুষের কোন ভোগান্তি না হয়, সেজন্য বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। প্রতিহিংসার পরিবর্তে নতুন ধারার রাজনীতি প্রতিষ্ঠা করা হবে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস-চেয়ারম্যান বেগম সেলিমা রহমান, আব্দুল আউয়াল মিন্টু, ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, শামসুজ্জামান দুদু, আহমেদ আযম খান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ডা. সুকোমল বড়ূয়া, গোলাম আকবর খন্দকার প্রমুখ।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য এমাজউদ্দীন আহমেদ, সাবেক উপ-উপাচার্য আ ফ ম ইউসুফ হায়দার প্রমুখ।