নারীবান্ধব পাবলিক টয়লেট নির্মাণের প্রকল্প হাতে নিয়েছে দুই সিটি করপোরেশন

নারীবান্ধব পাবলিক টয়লেট নির্মাণের প্রকল্প হাতে নিয়েছে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষ। এই প্রকল্পের কাজ শেষ হলে কর্মজীবী নারীরা রাজধানীতে ব্যবহার উপযোগী ২০০টি পাবলিক টয়লেট পাবেন। বর্তমানে রাজধানীতে নারীদের ব্যবহার উপযোগী মাত্র ২৬টি টয়লেট রয়েছে।

কর্মজীবী নারীদের জন্য রাজধানীসহ দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরগুলোতে পাবলিক টয়লেটের তেমন কোনও ব্যবস্থা নেই। তবে এ অবস্থার পরিবর্তনে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষ ওয়াটার এইড এবং এফএম ফাউন্ডেশনের সঙ্গে যুক্ত হয়ে নারীবান্ধব পাবলিক টয়লেট নির্মাণের প্রকল্প হাতে নিয়েছে। আর এই প্রকল্পের কাজ শেষ হলে কর্মজীবী নারীরা রাজধানীতে ব্যবহার উপযোগী ২০০টি পাবলিক টয়লেট পাবেন।

ডিএসসিসির মেগা প্রকল্পের পরিচালক ও অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান জানান, ‘নতুন প্রকল্পের আওতায় ৫০টি পাবলিক টয়লেট তৈরির সিদ্ধান্ত হয়েছে। এটি করার জন্য ওয়াটার এইডের সঙ্গে সিটি করপোরেশনের চুক্তি হয়েছে। এর মধ্যে কয়েকটি টয়লেট বানানো হয়েছে। বাকিগুলো বানানোর প্রক্রিয়া চলছে। সব মিলিয়ে ২০০টি পাবলিক টয়লেট তৈরি করা হবে।’ বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক সীমা মোসলে বলেন, ‘একটা সময় পাবলিক টয়লেটে মেয়েরা যাবে এটা ভাবাই যেতো না। এখন সেই অবস্থার অনেক পরিবর্তন হয়েছে। কিছু কিছু স্থানে নতুন ঝকঝকে, পরিচ্ছন্ন পাবলিক টয়লেট হয়েছে। সেখানকার নিরাপত্তা ব্যবস্থাও বেশ ভালো। এর জন্য আমি ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনসহ সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানাই।’

উন্নয়ন কর্মী সৈয়দ সাইফুল আলম শোভন বলেন, ‘গরীব রিকশা চালক বা নিম্ন আয়ের মানুষ ব্যয়বহুল পাবলিক টয়লেট ব্যবহার করতে পারবে না। পরিবেশের স্বার্থে পাবলিক টয়লেটগুলো বিনা খরচে ব্যবহারের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া দরকার।’

মেয়েদের কর্মক্ষেত্রে সম্পৃক্ত হওয়ার হার অনেক বেশি উল্লেখ করে রাজধানীর মোড়ে মোড়ে নারী বান্ধব পাবলিক টয়লেট নির্মাণের দাবিও জানান তারা।