নির্বাচনে মাঠে থাকবে সেনাবাহিনীর স্ট্রাইকিং ফোর্স

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ২৪ ডিসেম্বর থেকে সেনাবাহিনীর সদস্যরা মাঠে নামছেন বলে জানিয়েছেন ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ।। বৃহস্পতিবার (১৩ ডিসেম্বর) রাতে আগারগাঁওয়ের নির্বাচন কমিশন ভবনের নিজ কার্যালয়ে এ কথা জানান। সেনাবাহিনীর সদস্যরা মাঠে থাকবে ২ জানুয়ারি পর্যন্ত।

হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, আগামী ২৪ ডিসেম্বর থেকে ২ জানুয়ারি পর্যন্ত ভোটের মাঠে সেনাবাহিনী থাকবে। তারা স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে ১০ দিন মাঠে থাকবে।

ভোটের মাঠে বিজিবি কবে থেকে নামবে এমন প্রশ্নের জবাবে হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, ২২ ডিসেম্বর থেকে ২ জানুয়ারি পর্যন্ত বিজিবি মোতায়েনের পরিকল্পনা আছে। তবে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে শনিবার (১৫ ডিসেম্বর)। কারণ কমিশন এ বিষয়ে এখনো সিদ্ধান্তে পৌঁছেনি।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বৈঠকে কেউ কেউ সুপারিশ করেছেন মিডিয়াকে নিয়ন্ত্রণ করতে। আপনাদের ভাবনা কী-এমন প্রশ্নে হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, এখানে আসলে নিয়ন্ত্রণ বলা যাবে না। তারা যেটা বলেছেন কার্ড ছাড়া যেন কোনো সাংবাদিক ভোট কেন্দ্রে প্রবেশ না করে।

‘কারণ হচ্ছে অনেকগুলো অনলাইন পত্রিকা আছে যারা ভুয়া। তারা যেন কেন্দ্রে প্রবেশ করার সুযোগ না পায়। সেই বিষয়ে তারা মত দিয়েছেন। কারণ তারা (ভুয়া সাংবাদিক) যে ভোট কেন্দ্রে ঢুকে ব্যালট পেপার ছিনতাই করবে না এমনটা তো বলা যাবে না’- জানান তিনি।

কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ছবি জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীর পোস্টারে ব্যবহারের আবেদন প্রসঙ্গে হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, যেসব দলের নিবন্ধন নেই, তাদের প্রার্থী ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করলে খালেদা জিয়ার ফটো ব্যবহার করতে পারবেন। আর যাদের নিবন্ধন আছে, যেসব দলের প্রার্থীরা পারবেন না।

ভোটের আগে পরে ইন্টারনেটের গতি ৪জি থেকে ২জিতে নামিয়ে আনার ব্যাপারে পুলিশ ইসির প্রতি সুপারিশ করেছেন-এমন প্রশ্নে ইসি সচিব বলেন, তারা এই বিষয়ে প্রস্তাবনা দিয়েছেন তবে আমাদের পক্ষ থেকে এই ব্যাপারে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নেইনি ইসি। আমাদের কোনো চিন্তা-ভাবনাও নেই আপাতত।