গ্রেনেড হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত গাড়ি নিয়ে শেখ হাসিনার নির্বাচনী প্রচারনা

বুধবার (১২ ডিসেম্বর) থেকে শুরু হওয়া একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রচারণাসহ সব ধরনের কর্মসূচিতেই তিনি ব্যক্তিগত গাড়ি ব্যবহার করছেন। নির্বাচনের প্রচারে কোনো ধরনের সরকারি সুযোগ সুবিধা নিচ্ছেন না আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। এদিন গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মাজার জিয়ারত করেন প্রধানমন্ত্রী।

বিকালে কোটালীপাড়ার জনসভায় ভাষণ দেন তিনি। এরপর আজ বৃহস্পতিবার ঢাকা ফেরার পথে সাতটি পথসভায় অংশ নেবেন শেখ হাসিনা।

জানা গেছে, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার পর শেখ হাসিনার জন্য জার্মানি থেকে আনা বুলেট প্রুফ দুটি মার্জিডিজ বেঞ্চের একটিতে চড়ে তিনি নির্বাচনী প্রচারে অংশ নিয়েছেন।

নির্বাচনী সফরে তিনি স্থানীয় প্রশাসনের প্রটোকল নেননি। থেকেছেন পৈত্রিক বাড়িতে। তবে যে নিরাপত্তা সুবিধা নিচ্ছেন সেটা বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্য হিসেবে।

প্রধানমন্ত্রীর এ সফরে মন্ত্রীদের সরকারি গাড়ির বহরও নেই। সফরসঙ্গী হিসেবে নেই কোনো সরকারি কর্মকর্তা। সঙ্গে থাকা নেতাকর্মীরা ব্যবহার করছেন যার যার নিজের গাড়ি।

সফরসঙ্গী দলের নেতাকর্মী ও সাংবাদিকদের খরচও বহন করছে দল। তাদের থাকা-খাওয়া এবং দেখভালের দায়িত্ব পালন করেছে কেন্দ্রীয় এবং স্থানীয় আওয়ামী লীগ।

এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর প্রটোকল কর্মকর্তা খুরশীদ আলম গণামধ্যমকে বলেন, নির্বাচনী আচরণবিধি এবং লেভেল প্লেয়িং ফিল্ডের অংশ হিসেবে কোনো ধরনের সরকারি সুযোগ-সুবিধা ছাড়াই নির্বাচনী প্রচারণায় নেমেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।