ফরিদপুরে বাস ও পিকআপ ভ্যানের সংঘর্ষে নিহত ২

ফরিদপুরের নগরকান্দার গজারিয়া বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে যাত্রীবাহী বাস ও একটি পিকআপ ভ্যানের সংঘর্ষে দুইজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন কমপক্ষে ৩০ জন যাত্রী। সোমবার (১০ ডিসেম্বর) দুপুরে এই দূর্ঘটনা ঘটে। আহতদের উদ্ধার করে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নিহতরা হলেন, ইমার পরিবহনের যাত্রী গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গীপাড়া উপজেলার বর্নি গ্রামের সোলাইমান মোল্লার পুত্র হাফিজুর রহমান বাদশা (৪০) ও পিকআপ ভ্যানের হেলপার ভাঙ্গা উপজেলার সদরদি গ্রামের আব্দুল মালেক মুন্সির পুত্র আজিজুল রহমান মুন্সি(৫৫)।

দুর্ঘটনার পরে স্থানীয় বাসিন্দারা মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে। এ সময় ওই সড়কে প্রায় দেড় ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ থাকে। পরে পুলিশ পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, নড়াইল থেকে ঢাকাগামী ঈগল পরিবহনের (ঢাকা মেট্রো ব ১৪-৯৮৩১) একটি বাস প্রথমে ইউনিলিভার কোম্পানির একটি পিকআপ (ফরিদপুর ন ১১-০১২২) ও পরে পিরোজপুরগামী ইমাদ পরিবহনের একটি বাসকে (ঢাকা মেট্রো ব ১৪-৪৯০৪) দেয়। এরপর ঈগল পরিবহনের বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তা থেকে ছিটকে পাঁশের খাদে পড়ে যায়।

এ ছাড়া ঈগল পরিবহনের চাপায় রাস্তার পাশে থাকা একটি গরু মারা যায়। দুর্ঘটনার পর এই সড়কে চলাচলকারী স্বাধীন লিংক পরিবহন বন্ধের দাবীতে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে স্থানীয় বাসিন্দারা।

চরযোশরদী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান পথিক তালুকদার বলেন, এই স্বাধীন লিংক যেখানে সেখানে দাঁড়িয়ে যাত্রী উঠানামা করায়, রাস্থার অর্ধেকটা জুড়ে স্ট্যান্ড বানিয়ে ফেলে, ট্রাফিক আইনের নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করার কারণেই এই মহাসড়কে দিন দিন দুর্ঘটনা বাড়ছে। বিক্ষোভকারী স্থানীয় খালিদ হুসাইন বাকী বলেন, স্বাধীন লিংক নামে অবৈধ গাড়ীর বেপরোয়া চলাচলের কারণে দুর্ঘটনা হচ্ছে। স্বাধীন লিংক বন্ধ হলে এই সড়কে দুর্ঘটনা কমে যাবে।

ভাঙ্গা হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ মাহফুজার রহমান জানান, সোমবার দুপুরে ঢাকাগামী ঈগল পরিবহনের একটি বাস গজারিয়া বাসষ্টান্ড এলাকায় এসে লিভার ব্রাদার্সের একটি পিকআপ ভ্যানের সাথে সংঘর্ষ হয়। ঠিক সেই মূহুর্তে পিরোজপুরগামী ইমাদ পরিবহনের একটি গাড়ী সেখানে আসলে ইগল পরিবহনে বাসটি ইমাদ পরিবহনের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই ইমাদ পরিবহনের এক যাত্রী ও পিকআপ ভ্যানের হেলপার নিহত হয়। এ সময় আহত বাস দুটির প্রায় ৩০ জন যাত্রীকে উদ্ধার করে মোকসেদপুর উপজেলা হাসপাতাল, ভাঙ্গা উপজেলা হাসপাতাল ও ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে খবর পেয়ে ভাঙ্গা হাইওয়ে থানা, ভাঙ্গা ফায়ার সার্ভিস ও মুকসুদপুর ফায়ার সার্ভিস উদ্ধার কাজ চালায়। নিহতদের ভাঙ্গা হাইওয়ে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি