ইজতেমাকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, তীব্র যানজট সৃষ্টি

আজ সকালে রাজধানীর শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে তাবলিগের দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। ফলে মহাখালী থেকে টঙ্গীর দিকে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়। তবে এখন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বলে পুলিশের দাবি।

ইজতেমাকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, তীব্র যানজট সৃষ্টি

মাওলানা জুবায়ের ও দিল্লির মাওলানা সাদের অনুসারী দুই পক্ষের হাজার হাজার মুসল্লি পৃথকভাবে টঙ্গীতে ইজতেমা ময়দান ও ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক এবং আবদুল্লাহপুর থেকে কামারপাড়া হয়ে আশুলিয়ার দিকে সড়কে অবস্থান নিয়েছেন। এতে আজ শনিবার টঙ্গী ও রাজধানীর বিমানবন্দর সংলগ্ন এলাকায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।

ইজতেমাকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, তীব্র যানজট সৃষ্টি

উত্তরা জোনের ট্রাফিকের সহকারী কমিশনার জুলফিকার জুয়েল জানান, রাজধানীর অদূরে টঙ্গিতে জোর অনুষ্ঠিত হওয়াকে কেন্দ্র করে ফের বিবাদে জড়িয়েছে তাবলিগ জামাতের দুই গ্রুপ। আজ ফজরের নামাজের পর এই পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। রাজধানীর বিমানবন্দর গোলচত্বরে তাবলিগের দুই গ্রুপের মধ্যে পাল্টাপাল্টি ধাওয়া শুরু হয়। তাদের এক পক্ষ সড়কের একপাশে অবস্থান নেয় এবং টঙ্গীর দিকে যেতে চায়। তখন এক গ্রুপ অপর গ্রুপকে ঠেকাতে শনিবার ভোর থেকে উত্তরার বিমানবন্দর সড়কের উভয় পাশে অবস্থান নেয়। এতে উত্তরাগামী সড়কে ধীরগতিতে যান চলাচল করে। যার ফলে মহাখালী থেকে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়। এদিকে টঙ্গীর আব্দুল্লাহপুরেও অবস্থান নেয় আরেক পক্ষ।ইজতেমাকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, তীব্র যানজট সৃষ্টি

তবে পুলিশের দাবি, এখন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের মধ্যে রয়েছে। ফোর্সরা কাজ করছেন। তাবলিগ জামাতের উভয় পক্ষের মুরুব্বিদের সঙ্গে যোগাযোগ করে পরিস্থিতি স্বাভাবিকের চেষ্টা করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, এই দুই পক্ষের বিরোধিতার কারণে আসছে বছরের বিশ্ব ইজতেমা স্থগিত ঘোষণা করেছে সরকার। গত ১৫ নভেম্বর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় তাবলিগ জামাতের বিবদমান দুই পক্ষ ছাড়াও পুলিশের আইজি, ধর্মসচিবসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।