দ্বিতীয় দিনের মতো শাহবাগ মোড় অবরোধ

আজ রোববার দ্বিতীয় দিনের মতো শাহবাগ মোড় অবরোধ করে আন্দোলনে নেমেছে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র পরিষদ। সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বাড়িয়ে ৩৫ বছর করার দাবিতে এই আন্দোলনের ডাক দেয়া হয়েছে।

‘মরতে হলে মরবো দাবি নিয়ে ফিরবো’

               ‘দাবি পূরণ না হলে রাজপথ ছাড়বো না’

সকাল থেকে শাহবাগ মোড়ে শিক্ষার্থীরা গোল হয়ে বসে এধরণের স্লোগান দিচ্ছেন। একজন পুলিশ কর্মকর্তা শিক্ষার্থীদের কয়েকজনকে ডেকে শাহবাগ চার রাস্তার মোড় ছেড়ে জাতীয় যাদুঘরের সামনে অবস্থান গ্রহণের অনুরোধ জানালেও তারা সরকারের শীর্ষ পর্যায় থেকে দাবি পূরণের ঘোষণা না আসা পর্যন্ত সেখানেই অবস্থান করবেন বলে সাফ জানিয়ে দেন। সকাল ১০টায় ঘটনাস্থলে দেখা যায়, শিক্ষার্থীদের শাহবাগ মোড়ে অবস্থান গ্রহণ করার ফলে বিভিন্ন দিক থেকে আসা প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাস, মোটরসাইকেল ও রিকশার জটলা তৈরি হয়েছে। বিশেষ করে শাহবাগ মোড়ে অবস্থিত দেশের একমাত্র মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) ও বারডেম হাসপাতালে আগত রোগী ও তাদের স্বজনদের ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।

শনিবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র পরিষদের সভাপতি ইমতিয়াজ হোসেন জানান- ‘ছয় বছর ধরে চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বাড়িয়ে ৩৫ বছর করার দাবিতে অহিংস আন্দোলন করে আসছি। অথচ আমাদের যৌক্তিক দাবি এখনও বাস্তবায়ন হয়নি।বর্তমানে চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বাড়িয়ে ৩৫ করার দাবিতে সারাদেশে আন্দোলন শুরু হয়েছে। এরই অংশ হিসেবে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আগত চাকরি প্রত্যাশীরা শাহবাগ ঘেরাও করে আন্দোলন করছেন। তবে দাবি পূরণে সরকারি ঘোষণা না আসা পর্যন্ত এ আন্দোলন চলবে। আমরা চাইলেও এখান থেকে সরিয়ে নিতে পারবো না’

তাছাড়া একদিকে গণপরিবহন না থাকা অন্যদিকে রাস্তা অবরোধের ফলে বহু রোগীকে শাহবাগ মোড়ে নেমে পায়ে হেঁটে যেতে দেখা গেছে।