জমজমাট আয়োজনে শুরু হল ‘আড়ং ফরটি ইয়ার্স ফেস্টিভ্যাল’

দেশীয় ফ্যাশনব্র্যান্ড আড়ংয়ের ৪০ বছর পূর্তিতে কারুশিল্পীদের সম্মাননা জানিয়ে ঢাকার আর্মি স্টেডিয়ামে শুরু হয়েছে তিন দিনের উৎসব। গতকাল বিকেলে আর্মি স্টেডিয়ামে আড়ং এর চল্লিশ বছর পূর্তি উৎসব উদ্বোধন করলেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর।

তিন দিনব্যাপী চল্লিশ বছর পূর্তি উৎসবে উদ্বোধনী বক্তব্য প্রদান করেন ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা এবং চেয়ারপার্সন স্যার ফজলে হাসান আবেদ এবং ব্র্যাক এন্টারপ্রাইজেস-এর সিনিয়র ডিরেক্টর তামারা হাসান আবেদ। এই উৎসবের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী শিল্প এবং ফ্যাশনকে তুলে ধরতে চায় আড়ং। বৃহস্পতিবার বিকালে সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূরকে নিয়ে ৪০টি পায়রা আকাশে উড়িয়ে উৎসবের উদ্বোধন করেন ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা ফজলে হাসান আবেদ।

জমজমাট আয়োজনে সুরু হল ‘আড়ং ফরটি ইয়ার্স ফেস্টিভ্যাল’

সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেন, দেশের উন্নয়নের অগ্রগতিতে মহিলাদের ভূমিকা অতুলনীয়। মহিলাদের কর্মসংস্থান তৈরিতে আড়ং উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখছে। তিনি বলেন, নিজেকে স্বাবলম্বী করতে অনেক যুদ্ধ করতে হয়, সেই যুদ্ধে সহায়তা করছে আড়ং। দেশের শিল্প ঐতিহ্য ধরে রাখায়ও আড়ং-এর অবদান রয়েছে।

জমজমাট আয়োজনে সুরু হল ‘আড়ং ফরটি ইয়ার্স ফেস্টিভ্যাল’

ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা এবং চেয়ারপার্সন স্যার ফজলে হাসান আবেদ বলেন, স্বাধীনতা অর্জনের পর পর দারিদ্র দূর করার লক্ষ্যেই আড়ং-এর উদ্যোগ নেয়া হয়েছিলো। প্রতিষ্ঠার সময় মোকাবিলা করতে হয়েছে অনেক প্রতিবন্ধকতা। পেশাদারি দৃষ্টিকোণ থেকে দরিদ্র প্রস্তুতকারকদের স্বার্থকেই তারা বড় করে দেখেছেন। তিনি বলেন, আড়ং হারানো ঐতিহ্য ধরে রেখে তাকে বাণিজ্যিক রূপ দিয়েছে।

জমজমাট আয়োজনে সুরু হল ‘আড়ং ফরটি ইয়ার্স ফেস্টিভ্যাল’

ব্র্যাক এন্টারপ্রাইজেস-এর সিনিয়র ডিরেক্টর তামারা হাসান আবেদ বলেন, বাংলাদেশ ও আড়ং একই সাথে বেড়ে উঠেছে। আজ দেশে ৬৫ হাজার কর্মসংস্থান তৈরি করেছে আড়ং। তিনি বলেন, আড়ং-এর ৪০ বছরের যাত্রা ও বাংলাদেশের ঐতিহ্যের সাথে তরুণ প্রজন্মকে পরিচয় করিয়ে দেয়ার জন্যই এই উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে।

জমজমাট আয়োজনে সুরু হল ‘আড়ং ফরটি ইয়ার্স ফেস্টিভ্যাল’

সবার জন্য উন্মুক্ত এ উৎসবের নাম দেয়া হয়েছে ‘আড়ং ফরটি ইয়ার্স ফেস্টিভ্যাল’, যেখানে তুলে ধরা হয়েছে বাংলাদেশের হস্তশিল্পের ঐতিহ্য এবং কারুশিল্পীদের সাফল্যের গল্প। ২৫-২৭ অক্টোবর তিন দিনব্যাপী এ আয়োজনে হস্তশিল্প প্রদর্শনীর পাশাপাশি রয়েছে বেশ কয়েকটি কর্মশালা, যেখানে দর্শনার্থীরা সরাসরি কারু ও হস্তশিল্পীদের কাজের সঙ্গে পরিচিত হতে পারবেন। এছাড়া থাকছে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান, ফ্যাশন শো ও কনসার্ট।

জমজমাট আয়োজনে সুরু হল ‘আড়ং ফরটি ইয়ার্স ফেস্টিভ্যাল’

উৎসবে সন্ধ্যায় আয়োজিত একটি বিশেষ অনুষ্ঠানে আড়ং বিভিন্ন ইন্ডাস্ট্রির ৪০ জন অসাধারণ কারুশিল্পী ও উদ্যোক্তাকে স্বীকৃতি প্রদান করেছে। ফ্যাশন শোতে প্রদর্শিত হবে হারস্টোরি, তাগা এবং তাগা ম্যান ব্র্যান্ডের নতুন পোশাক। আর কনসার্টে সংগীত পরিবেশন করবে নগর বাউল, জলের গান, নেমেসিস ও মিনার। দর্শনার্থীদের জন্য থাকছে বেশ কয়েকটি খাবারের স্টল, শিশুদের জন্য আলাদা জায়গা এবং পার্টনার প্রতিষ্ঠানের স্টলে বিশেষ সুবিধায় কেনাকাটার ব্যবস্থা। উৎসবের দর্শকেরা ১১টি লাইভ কারুশিল্প প্রদর্শনী উপভোগ করতে পারবেন যার মধ্যে ৫টিতে কর্মশালায় অংশগ্রহণের সুযোগ থাকছে।

জমজমাট আয়োজনে সুরু হল ‘আড়ং ফরটি ইয়ার্স ফেস্টিভ্যাল’

আড়ং এর চল্লিশ বছর পূর্তি উৎসব বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী শিল্পকলা এবং ফ্যাশনকে তুলে ধরবে। উৎসবটি চলবে ২৭ অক্টোবর পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল ১১টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত।

জমজমাট আয়োজনে সুরু হল ‘আড়ং ফরটি ইয়ার্স ফেস্টিভ্যাল’