ফরিদপুরের সালথায় ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে সরকারী রাস্তার গাছ কাটার অভিযোগ

ফরিদপুরের সালথায় ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে সরকারী রাস্তার প্রায় ১০ থেকে ১২ টি মেহেগুনী ও বড় ধরনের মূল্যমান আম গাছ কেটে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার যদুনন্দী ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের সদস্য মোঃ সিরাজ বিশ্বাসের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ পাওয়া যায়। তবে গাছ কেটে তড়িঘড়ি করে সরিয়ে নিয়ে যায় বলেও অভিযোগ রয়েছে এলাকায়। এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

২ নং ওয়ার্ডের সদস্য ইমরুল বলেন, আমি পরে জানতে পেরেছি যে ৪নং ওয়ার্ডের মেম্বার সিরাজ বিশ্বাসও তার লোকজন মিলে আমার ওয়ার্ডে এসে এ গাছ কেটেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, অত্র ইউনিয়নের খারদিয়া গ্রামের কাজী পাড়া এলাকায় মৃত আব্দু শেখের ছেলে ছিরু শেখের বাড়ির পাঁশে থাকা এ গাছ গুলি সিরাজ মেম্বার সল্পমূল্যে কিনতে চাইলে ছিরু শেখ সরকারী রাস্তার গাছ বলে বিক্রি করতে চায়নি। ছিরু শেখ বলেন, সিরাজ মেম্বার আমাকে বলেছে থানা পুলিশ প্রশাসন আমি সিরাজ মেম্বার দেখবো তুমি আমার নিকট গাছ বিক্রি করো, আমি তার কথায় গাছ বিক্রি করেছি। এব্যাপারে সিরাজ মেম্বারের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিদ্যুতের খুঁটি যেতে পারে এখান দিয়ে তাই ওনাকে বলেছি বিক্রি করতে।

ইউপি চেয়ারম্যান ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, সিরাজ মেম্বার শুধু এই গাছ নয় এলাকায় দুর্নীতির পাহাড় জমিয়েছে। ইউপি চেয়ারম্যান আবুল খায়ের মুন্সী বলেন, জমি আছে নাই প্রকল্পের ঘর দেওয়ার কথা বলে সিরাজ মেম্বার গরীব মানুষের কাছ থেকে টাকা নেওয়ার অভিযোগও আমার নিকট এসেছে। বয়স্ক ভাতার জন্যে টাকা তুলেছে,সরকারী জমি লিজ দেওয়ার কথা বলে টাকা হাতিয়েছে, এখন আবার বিভিন্ন সময় সাধারণ জনগণ থেকে ফোন আসে প্রতি রাতে এলাকায় জুয়ার আসর বসিয়ে চাঁদা তোলে সে। এতে আমার ইউনিয়নের ভাবমূর্তী নষ্ট হচ্ছে। সিরাজ মেম্বারের এই কর্মকান্ডে এলাকায় সাধারণ মানুষের মধ্যে ক্ষোভ সৃষ্টি করেছে। তবে সিরাজ মেম্বার এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, স্থানীয় একটি চক্র আমাকে হেয় করতে বানোয়াটি অভিযোগ করেছেন। এলাকায় জুয়ার আসর বসিয়ে চাঁদা তোলা, প্রকল্পের ঘর দেওয়ার কথা বলে গরীব মানুষের কাছ থেকে টাকা নেওয়া সবই স্থানীয় দলীয় কোন্দলের কারণে মিথ্যা তথ্য পরিবেশন করা হয়েছে।

হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি