মাঝরাত পর্যন্ত ক্লাস নেয়া বন্ধের দাবিতে বেরোবির উপাচার্যের বাসভবন ঘেরাও

রোববার দিবাগত রাত একটার দিকে মাঝরাত পর্যন্ত প্রায় দুই ঘণ্টাব্যাপী উপাচার্যের বাসভবন ঘেরাও করে অবস্থান নেন বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের(বেরোবি) শিক্ষার্থীরা। মাঝরাত পর্যন্ত উপাচার্যের ক্লাস-পরীক্ষা নেয়া বন্ধের দাবিতে উপাচার্যের বাসভবন ঘেরাও করেন তারা। এ সময় পুলিশের উপস্থিতিতেই উপাচার্য বাসভবন লক্ষ্য করে ঢিল ছোড়েন বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীরা জানান, রোববার সন্ধ্যা ৭টায় রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ‘পাবলিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশন ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক একটি নিয়মিত কোর্সের ক্লাস নেয়ার কথা ছিল উপাচার্য অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহর। যদিও সেই ক্লাস শুরু হয় রাত ১১টা ৫ মিনিটে। শেষ হয় রাত ১২টার দিকে।

এদিকে ক্লাস শেষে বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন সর্দারপাড়ায় ছাত্রাবাসে ফেরার পথে ছিনতাইকারীর হাতে আহত হন ফরহাদ হোসেন এলিট নামে এক শিক্ষার্থী। ছিনতাইয়ের সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে মাঝরাত পর্যন্ত উপাচার্যের ক্লাস বন্ধে উপাচার্যের বাসভবন ঘেরাও করে অবস্থান নেন শিক্ষার্থীরা।

এ সময় বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা পুলিশের উপস্থিতিতেই উপাচার্য বাসভবন লক্ষ্য করে ঢিল ছুড়তে থাকেন। পরে রাত ১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. আবু কালাম মো. ফরিদ উল ইসলাম ও বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি তুষার কিবরিয়া এবং সাধারণ সম্পাদক নোবেল শেখ উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। এ সময় উপাচার্যের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে কথা বলেন তারা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক শিক্ষার্থী বলেন, উপাচার্য মাঝরাত পর্যন্ত একাধিক বিভাগের ক্লাস-পরীক্ষা নেয়ায় প্রায়ই মেয়েদের নানাভাবে লাঞ্ছিত হতে হচ্ছে। কিন্তু নম্বর কম পাবেন বা ফেল করার ভয়ে বাধ্য হয়েই উপাচার্যের খেয়ালখুশি মতো চলা এসব ক্লাস-পরীক্ষায় অংশ নিতে হয় তাদের।

সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. আবু কালাম মো. ফরিদ উল ইসলাম বলেন, শিক্ষার্থীদের সমস্যার বিষয়ে উপাচার্যকে জানানো হয়েছে। আশা করি আর সমস্যা হবে না।