দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে মাদ্রাসার শিক্ষক কতৃক ছাত্র নির্যাতনের শিকার

দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে মাদ্রাসার শিক্ষক কতৃক এতিম শিশু ছাত্র সাকিল অমানবিক নিযাতনের শিকার হয়ে আহত অবস্থায় এখন হাসপাতালের বেডে কাতরাচ্ছে।

মাতা-পিতা হারা শিশু শাকিল ফুলবাড়ী উপজেলার শিবনগর ইউনিয়নের রাজারামপুর দেবীপুর গ্রামের মৃত মহিবুলের ছেলে। সে দেবীপুর হাফেজিয়া মাাদ্রাসার নাজরানা শ্রেনীর ছাত্র।

গত শুক্রবার সন্ধা ৬টায় দেবীপুর হাফেজিয়া মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক হাবীব উদ্দিনের সামান্য কিছু টাকা চুরির সন্দেহে জোর পুর্বক মাদ্রাসার ঘরে নিয়ে এসে শিশু সাকিলকে বাশের লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারপিট করে। তার গায়ের বিভিন্ন জায়গায় লাঠির গভীর ক্ষতচিহৃ রয়েছে। এদিকে খবর পেয়ে শাকিলের একমাত্র অভিবাবক তার নানা গ্রাম্য ডাক্তারের কাছে প্রাথমিক চিকিৎসা গ্রহনের পর তাকে ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এনে ভর্তি করান। এ নিয়ে ঐ শিক্ষকের উপর এলাকার মানুষের চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। এ ঘটনা জানতে পেরে অনেকেই হাসপাতালে শাকিলকে এক নজর দেখতে এসে অশ্রু ধরে রাখতে পারেনি।

এ ব্যাপারে দেবীপুর হাফেজিয়া মাাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক বায়জিদ বোস্তামি বলেন, ঘটনার সময় তিনি মাদ্রাসায় উপস্থিত ছিলেন না। পরে জানতে পেরে শিশুটিকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নিয়ে আসেন। বিষয়টি নিয়ে তিনি আইনগত ব্যাবস্থা গ্রহন করবেন বলে জানিয়েছেন।

শিবনগর ইউপি চেয়ারম্যান মামুনুর রশিদ চৌধুরী বিপ্লব বলেন, লোকমুখে জানতে পেরেছি হাবীব নামে
ঐ মাদ্রাসার শিক্ষক শিশুটিকে অমানবিক নির্যাতন করেছে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ফুলবাড়ী থানার অফিসার্স ইনচার্জ শেখ নাসিম হাবীব বলেন, বিষয়টি শুনেছি। তবে এখনো কেউ লিখিত অভিযোগ দায়ের করেনি। তবে ঐ শিক্ষককে আটকের চেষ্টা চলছে। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যাবস্থা নেয়া হবে।

 

ফখরুল হাসান পলাশ, দিনাজপুর প্রতিনিধি